বিশ্বকাপ ফাইনালে তাদের দ্বৈরথ এখনও ভুলে যায়নি ক্রিকেট বিশ্ব। মাস চারেক আগের সেই নাটকীয় ফাইনালের পরে আবার বাইশ গজে মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড এবং নিউজ়িল্যান্ড। যে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ইংল্যান্ড জেতার পরে দ্বিতীয় ম্যাচে সিরিজ ১-১ করে দিল নিউজ়িল্যান্ড।

দু’দলের মধ্যে তফাত হয়ে গেল ফিল্ডিংয়ে। রবিবার ওয়েলিংটনে নিউজ়িল্যান্ডের কলিন ডে গ্র্যান্ডহোম যেখানে চারটে ক্যাচ ধরলেন, সেখানে ছ’টি ক্যাচ ফস্কালেন ইংল্যান্ডের ফিল্ডাররা! যার জেরে ২০ ওভারে নিউজ়িল্যান্ডের আট উইকেটে ১৭৬ রানের জবাবে ইংল্যান্ড শেষ হয়ে যায় ১৫৫ রানে। মিচেল স্যান্টনার ২৫ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। টস জিতে নিউজ়িল্যান্ডকে ব্যাট করতে পাঠায় ইংল্যান্ড। গাপ্টিল ২৮ বলে ৪১ রান করেন। তাঁর ইনিংসে রয়েছে তিনটে চার, দুটো ছয়। শেষ দিকে ২২ বলে ৪২ রান করেন জিমি নিশাম। মেরেছেন চারটি ছয়, দুটি চার। ইংল্যান্ড বোলারদের মধ্যে ক্রিস জর্ডান তিনটি এবং স্যাম কারেন দুটি উইকেট নেন। তবে ইংল্যান্ড ফিল্ডারদের বদান্যতায় নিউজ়িল্যান্ড ইনিংস ভাল জায়গায় পৌঁছয়।জবাবে ইংল্যান্ড ব্যাট করতে নেমে প্রথম বলেই হারায় বিশ্বকাপে দুরন্ত ফর্মে থাকা জনি বেয়ারস্টোকে। ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ রান দাউইদ মালানের (৩৯)। কিন্তু নিউজ়িল্যান্ড ফিল্ডিং আর স্যান্টনারের বাঁ-হাতি স্পিনের সামনে আটকে যায় ইংল্যান্ড। হারের পরে ইংল্যান্ড অধিনায়ক অইন মর্গ্যান বলেছেন, ‘‘হারের কারণটা খুঁজে বার করা বিশেষ কঠিন কাজ নয়। আমরা ক্যাচ ফেলেছি আর নিয়মিত উইকেট হারিয়েছি।’’ সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ মঙ্গলবার।

বৃষ্টি বাঁচাল পাকিস্তানকে: অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রথম ম্যাচে বৃষ্টি ত্রাতা হয়ে দাঁড়াল পাকিস্তানের কাছে। সিডনিতে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে কমে ১৫ ওভারে দাঁড়ায়। পাকিস্তান ১১৯ রানের লক্ষ্য দেয় অস্ট্রেলিয়াকে। জবাবে ৩.১ ওভারে অস্ট্রেলিয়া বিনা উইকেটে ৪১ রান তোলার পরে বৃষ্টিতে খেলা বাতিল হয়ে যায়।