রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বিতর্কিত মাঁকড়ীয় আউটের প্রসঙ্গ টেনে টুইটারে খোঁচা দিলেন এক ব্যক্তি। পাল্টা টুইটে চাতুর্যের সঙ্গে অশ্বিন অবশ্য তাঁর উত্তরও দিয়েছেন।

এই বছর আইপিএলের সময় খবরের শিরোনামে উঠে এসেছিলেন ভারতের তারকা স্পিনার তথা আইপিএলে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন। রাজস্থান রয়্যালস বনাম কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের ম্যাচে দুরন্ত ছন্দে থাকা জস বাটলারকে মাঁকড়ীয় ভঙ্গিতে আউট করে দেন অশ্বিন। নন-স্ট্রাইকার প্রান্তে দাঁড়ানো বাটলার কিছুটা এগিয়ে গিয়েছিলেন ক্রিজ থেকে। সেই সুযোগ নিয়ে তাঁকে রান আউট করে দেন অশ্বিন। 

১৯৪৭ সালের ১৩ ডিসেম্বর ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে সর্বপ্রথম এমন ঘটনা ঘটেছিল। অজি ওপেনার বিল ব্রাউনকে এভাবে আউট করেছিলেন বিনু মাঁকড়। তার পর থেকেই বিশ্বক্রিকেটে এই ধরনের রান আউট মাঁকড় আউট নামে পরিচিত হয়। অশ্বিন জস বাটলারকে এইভাবে আউট করার পর থেকেই বিশ্ব ক্রিকেটে নিন্দিত হয়েছেন এই ডান হাতি অফস্পিনার। ফেসবুক,টুইটারে তাঁকে ট্রোলিং শুরু করে দেন নেটিজেনরা। তাঁর স্পোর্টসম্যান স্পিরিট নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বহু ক্রিকেটার। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই ঘটনা নিয়ে দুঃখপ্রকাশ করেননি অশ্বিন। অনেকে সমালোচনা করলেও বেশ কয়েক জনকে পাশেও পেয়েছিলেন অশ্বিন। জস বাটলারের পরেও শিখর ধওয়নকেও একই কায়দায় আউট করার চেষ্টা করেন ভারতের এই তারকা স্পিনার।

আরও পড়ুন: পোর্ট অব স্পেনে বিরাট-রাজ, ৫৯ রানে ক্যারিবিয়ানদের হারিয়ে দিল ভারত

 

এই মাঁকড় খোঁচায় ফের টুইটারে বিদ্ধ হলেন তিনি। দক্ষিণী পরিচালক মধু নারায়ণের পরিচালিত ‘কুমবালাঙ্গি নাইটস’ দেখে রবিচন্দ্রন অশ্বিন টুইট করেন,‘সাধারণ গল্প কিন্তু কি অসাধারণ।’এরপরেই টুইটে বিদ্ধ হন অশ্বিন। জস বাটলারকে আউটের প্রসঙ্গ টেনে টুইটারে এক ব্যক্তি লেখেন, ‘হ্যাঁ একদম। ঠিক  যেমন অসাধারণ ভাবে তুমি জস বাটলারকে আউট করেছিলে।’টুইটের পাল্টা জবাবে অশ্বিন লেখেন, ‘অবশ্যই। নিখুঁতভাবে।’

মাঁকড় ক্রিকেটের নিয়ম বিরুদ্ধ না হলেও একে ভাল চোখে দেখেন না অনেকেই। তাই সেই মাঁকড় নিয়ে টুইটারে বারবার অস্বস্তির মুখে পড়ছেন ভারতীয় এই তারকা স্পিনার।