বিরাটের সেঞ্চুরি, ভুবনেশ্বরের চার উইকেটের দাপটে পোর্ট অব স্পেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৫৯ রানে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজে ১-০ এগিয়ে গেল ভারত। প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ায় বুধবার, সিরিজের শেষ ম্যাচই হতে চলেছে সিরিজ নির্ণায়ক ম্যাচ।

রবিবার টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বিরাট কোহালি। কিন্তু প্রথম ওভারেই শেলডন কটরেলের ছোট ইনসুংইয়ে পরাস্ত হয়ে ফিরতে হয় শিখর ধওয়নকে (২)। তখন ভারতের স্কোর ২-১। খেলার বয়স তিন বল। তখনই তিন নম্বরে নামা ব্যাটসম্যানের আসল পরীক্ষা। ওপেনারের ব্যর্থতা ঢাকতে বিরাটকেই মূল দায়িত্ব নিতে হত। কোহালি বরাবরই সেই দায়িত্ব নিতে পছন্দ করেন। এ দিন কেমার রোচকে কভার ড্রাইভে স্বাগত জানিয়ে তিনি বুঝিয়ে দিলেন, আরও এক বার সেই দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত।

এ দিন নিজের ছন্দে ছিলেন না ‘হিটম্যান’। তাই কোহালিকে স্কোরবোর্ড সচল রাখার দায়িত্ব নিতে হয়। রোহিত ফিরে যাওয়ার পরে বহু চর্চিত চার নম্বরে ব্যাট করতে আসেন ঋষভ পন্থ। কিন্তু প্রত্যাশা অনুযায়ী সফল হননি তরুণ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। ৩৫ বলে ২০ রান করার পরে কার্লোস ব্রাথওয়েটকে শর্ট আর্ম জ্যাব করতে গিয়ে বিপাকে পড়েন। একেবারে সামনের পায়ের বল লেগস্টাম্পের দিকে টানতে গিয়ে ব্যাটের নীচের দিক দিয়ে স্টাম্পে আছড়ে পড়ে বল।

আরও পড়ুন: সৌরভকে টপকে গেলেন কোহালি, পেলেন ‘দাদা’র অভিনন্দন

পাঁচ নম্বরে আসা শ্রেয়স আইয়ারের কাঁধে দায়িত্ব ছিল কোহালিকে সঙ্গ দেওয়ার। ওয়ান ডে-তে মাঝের ওভারগুলোয় স্কোরবোর্ড সচল রাখা একজন মিডল অর্ডারের চ্যালেঞ্জ। সেই কাজটি অনায়াসে করে গেলেন দিল্লি ক্যাপিটালস অধিনায়ক। ৪৯ বলে ওয়ান ডে-তে তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি সম্পূর্ণ করলেন শ্রেয়স। কিন্তু প্রথম সেঞ্চুরি করার সুযোগ নষ্ট করলেন। ৬৮ বলে ৭১ রান করে ফিরে যাওয়ার সময় ভারতীয় ইনিংসের বয়স ৪৫.৩ ওভার। শেষ পাঁচ ওভারে ২৯ রানের বেশি তুলতে পারেনি ভারত। ১৪ বলে ১৬ করে রান আউট হন কেদার যাদব। 

আরও পড়ুন: দ্রাবিড়কে পাশে পেয়ে সম্মানিত, বলছেন বুমরা

এ দিন ওয়ানডে মোট ৪২তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করলেন বিরাট। ১৪টি চার ও একটি ছয়ের সৌজন্যে ১২৫ বলে তিনি করেন ১২০ রান। এ দিন তিনি ভেঙে দিলেন জাভেদ মিঁয়াদাদের রেকর্ড। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় এখন বিরাটই শীর্ষে। এ দিন তিনি ওয়ানডে-তে সৌরভের রানের রেকর্ডও ভাঙেন। ৩০০ ওয়ানডে ইনিংসে সৌরভ করেছিলেন ১১৩৬৩ রান, বিরাট সেই রান টপকে গেলেন ২২৯তম ইনিংসে। ওয়ানডেতে বিরাটের সামনে এখন শুধুই সচিন তেন্ডুলকর। বিরাটের মোট রান ১১৪০৬, সচিনের ১৮৪২৬।

কোহালি-শ্রেয়সদের ব্যাটে ভারত শেষ করে ২৭৯/৭-তে। জবাবে এভিন লুইস (৬৫) ভাল শুরু করলেও ক্রিস গেল ফেরেন ১১ করে। যদিও ব্রায়ান লারার রেকর্ড ভেঙে গেলই এখন ওয়ান ডে-তে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী। কিন্তু তার পরেও খুব একটা খারাপ খেলছিল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ম্যাচ ঘুরে গেল ৩৫তম ওভারে। কোহালির অসাধারণ ক্যাচে নিকোলাস পুরানকে ফেরান ভুবনেশ্বর কুমার। সেই ওভারেই আউট হন রস্টন চেজ। এরপর আর কোনও প্রতিরোধই গড়ে তুলতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ৪২ ওভারে ২১০ রানে শেষ হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ১২০ রান করে ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হন বিরাট কোহালি।