সিনসিন্নাটি ওপেনের প্রথম রাউন্ডে জিতলেন রজার ফেডেরার ও নোভাক জোকোভিচ। পিঠে ব্যথার জন্য টুর্নামেন্ট থেকে সরে দাঁড়ালেন সেরিনা উইলিয়ামস। গত রবিবারও যুক্তরাষ্ট্রের কিংবদন্তি তারকা টোরোন্টোয় ডব্লিউটিএ ফাইনালে চার গেম খেলে ম্যাচ ছেড়ে দেন। সিনসিন্নাটিতে নামতেই পারলেন না।

যুক্তরাষ্ট্র ওপেন শুরু হচ্ছে ২৬ অগস্ট। সেখানে ২৩ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যামজয়ী সেরিনা খেলতে পারেন কি না সেটাই দেখার। পাশাপাশি দারুণ ছন্দে আছেন জোকোভিচ ও ফেডেরার। এই টুর্নামেন্টকে বলা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের প্রস্তুতি-মঞ্চ। তৃতীয় বাছাই ফেডেরারের খেলা ছিল আর্জেন্টিনার খুয়ান ইগনাসিয়ো লনদেরোর সঙ্গে। দ্বিতীয় সেটে ২-২ ফলের সময় বৃষ্টি নামায় খেলা এক ঘণ্টা বন্ধ ছিল। তাতে অবশ্য রজারের ছন্দপতন হয়নি। তিনি ম্যাচ জেতেন ৬-৩, ৬-৪ সেটে। এখানে গত বারের চ্যাম্পিয়ন জোকোভিচ কিন্তু স্যাম কুয়েরির বিরুদ্ধে ম্যাচে তিন বার ডাবল ফল্ট করেন। তবু ম্যাচ জেতেন সহজে ৭-৫, ৬-১ সেটে। 

ফেডেরার বলেছেন, ‘‘ম্যাচটা জিততে পেরে সত্যিই ভাল লাগছে। বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ থাকায় একটা সময় চিন্তায় পড়েছিলাম ছন্দ ধরে রাখতে পারব কি না ভেবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তেমন কিছু হয়নি।’’ এখানেই না থেমে ফেডেরার যোগ করেন, ‘‘এ বার যা কিছু পরীক্ষা সব হার্ড কোর্টে। ভাল লাগছে জয় দিয়ে শুরু করতে পারলাম ভেবে। আসলে ইগানিসিয়োর বিরুদ্ধে হোমওয়ার্ক করতে পারিনি। সেটা হল প্রথম ওর বিরুদ্ধে খেললাম বলে। তা ছাড়া ও ট্যুরে নতুন খেলছে। তাই হোমওয়ার্কের বিশেষ সুযোগ ছিল না। তাই শুধু মাত্র নিজের খেলায় মনঃসংযোগ ধরে রেখেছি।’’

ম্যাচ জিতে জোকোভিচের প্রতিক্রিয়া, ‘‘শুরু দিকে একটু স্নায়ুর চাপে ভুগেছি। প্রথম দিকে স্যামের খেলাতে বেশি দাপট ছিল। তা ছাড়া ওর বিগ সার্ভিস সামলানো সব সময় ঝামেলার।’’ নোভাকের আরও কথা, ‘‘দ্বিতীয় সেটে অবশ্য অসুবিধে হয়নি। আসলে অনেক দিন পরে কোর্টে নামলাম বলেই এটা হল। আশা করছি পরের রাউন্ডে নিজের খেলায় আরও উন্নতি করতে পারব।’’