চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফিরতি সেমিফাইনাল লিভারপুলের কাছে ০-৪ হারের ধাক্কা সামলাতে বার্সেলোনা নতুন করে দল সাজাতে উঠে পড়ে লাগল। নেমার দা সিলভা স্যান্টোস ক্লাব ছাড়ার পরে স্পেনের ক্লাবে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছিল সেটাই ভরাট করতে আতলেতিকো দে মাদ্রিদ থেকে নেওয়া হচ্ছে অঁতোয়া গ্রিজ়ম্যানকে। ফরাসি তারকা ভিডিয়ো পোস্ট করে ক্লাব ছাড়ার কথা জানালেও তিনি যে লিয়োনেল মেসির ক্লাবে যাচ্ছেনই সেটা বলেননি। কিন্তু তাঁর বার্সায় যোগ দেওয়া নিশ্চিত বলে জানা গিয়েছে। মেসি-নেমার-সুয়ারেস ত্রয়ীর মতোই বার্সায় নতুন ত্রয়ীর স্বপ্ন দেখা হচ্ছে গ্রিজ়ম্যানকে এনে। ঠিক যে ভাবে গত বার নেমারের শূন্যস্থান ভরাটের চেষ্টা হয়েছিল লিভারপুল থেকে ফিলিপে কুতিনহোকে কিনে। কিন্তু নেমারের দেশের ফুটবলার দারুণ কিছু করতে পারেননি। শোনা যাচ্ছে কুতিনহোকে বিক্রি করে দেওয়া হবে। তাঁর সম্ভাব্য গন্তব্য হয়তো চেলসি। যদিও ফুটবলার কেনা-বেচা নিয়ে চেলসি ফিফার নানা নিষেধাজ্ঞায় এখনও জর্জরিত। 

নতুন মরসুমে দলবদলের নাটক নতুন মাত্রা নিয়েছে আবার পল পোগবাকে নিয়ে জল্পনা শুরু হওয়ায়। এতদিন শোনা যাচ্ছিল, জ়িনেদিন জ়িদান তাঁকে রিয়াল মাদ্রিদে চান। কিন্তু ফরাসি ম্যানেজার নাকি এই মুহূর্তে তাঁর ব্যাপারে বিশেষ আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। বরং বার্সাই তাঁকে পেতে বেশি আগ্রহী বলে খবর। যে কারণে ইভান রাকিতিচকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে বলে খবর। পোগবা নিজেও অতীতে বার্সায় খেলার ব্যাপারে আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। যার বড় কারণ মেসির তিনি অসম্ভব ভক্ত। আর্জেন্টিনীয় কিংবদন্তির পাশে খেলার স্বপ্ন বহুদিনের। আর ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক অনেক দিন থেকেই খারাপ। জোসে মোরিনহোর জমানায় সেটা বিশ্রী অবস্থায় পৌঁছেছিল। ওয়ে গুন্নার সোলসার দায়িত্ব নেওয়ার পরে অবশ্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। কিন্তু পোগবাও শেষ পর্যন্ত ধারাহিকতা দেখাতে পারেননি। তার উপর ম্যান ইউ পরের বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে পারবে না। খেলতে হবে ইউরোপা লিগে। পোগবা চান, যে কোনও ভাবে ইউরোপের সেরা প্রতিযোগিতায় খেলতে। ইটালির এক প্রচারমাধ্যমের খবর, পোগবাকে কিনতে বার্সা প্রায় ১১ হাজার কোটি ৯১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে রাজি আছে। এবং বিপুল এই খরচ মেটাতেই রাকিতিচকে বিক্রি করার সম্ভাবনা প্রবল।              

এ দিকে, পাঁচ বছর খেলার পরে আতলেতিকো দে মাদ্রিদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অঁতোয়া গ্রিজ়ম্যান। অথচ গত বছরের জুনে বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি তারকা পাঁচ বছরের জন্য নতুন ভাবে চুক্তিবদ্ধ হন। কিন্তু হঠাৎই তিনি সিদ্ধান্ত বদলে ফেললেন। শনিবার লা লিগায় লেভান্তের বিরুদ্ধে গ্রিজ়ম্যান তাঁর আতলেতিকোর হয়ে শেষ ম্যাচ খেলবেন।

গত মরসুমেই গ্রিজ়ম্যানের বার্সেলোনায় সই করার সম্ভাবনা ছিল। ফরাসি স্ট্রাইকার সেই সময়ে নিজেই জানিয়েছিলেন, তাঁর কাছে বার্সার বিশাল অঙ্কের প্রস্তাবের কথা। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত বদলে আতলেতিকোয় থেকে যান। স্পেন ও ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের খবর, এ বার তিনি বার্সাতেই যাচ্ছেন। অর্থাৎ পরের মরসুমে তাঁকে মেসির পাশে খেলতে দেখা যাবে। আতলেতিকোর সঙ্গে গ্রিজ়ম্যানের যে চুক্তি, তাতে তাঁকে কিনতে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯ হাজার ৫০ কোটি টাকা খরচ করতে হবে। বার্সা সেই অর্থ দিতে রাজি হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে।

অবশেষে আতলেতিকো ছাড়ার খবর দিয়ে গ্রিজ়ম্যান নিজেই বলেছেন, ‘‘পাঁচ বছর এখানে দারুণ কাটিয়েছি। সব কিছুর জন্য আতলেতিকোকে ধন্যবাদ।’’  সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘জানি আমার সিদ্ধান্তে এখানকার অনেকে দুঃখ পাবে। ওদের ভালবাসা ভুলব না। কিন্তু কখনও কখনও জীবনে নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়। আমিও তার সামনে দাঁড়াতে চাই। আশা করি সমর্থকেরা শুভেচ্ছাই জানাবেন।’’

গ্রিজ়ম্যান তাঁর এখনকার ক্লাবের হয়ে ১৩৩ গোল করেছেন ২৫৬ ম্যাচে। আগে খেলতেন রিয়াল সোসিদাদে। আর আতলেতিকো তাঁর সময়ে ইউরোপা লিগ, স্প্যানিশ সুপার কাপ, উয়েফা সুপার কাপ জিতেছে। এমনিতে আতলেতিকো ২০১৭ সালে ফিফার কাছে বার্সার নামে নালিশ করেছিল। গ্রিজ়ম্যানকে ‘অবৈধ’ প্রস্তাব দেওয়ার প্রতিবাদ জানিয়ে। যদিও ফিফা সেই অভিযোগ উড়িয়ে দেয়। শুধু গ্রিজ়ম্যান নন। এই মরসুমের পরে আতলেতিকো ছাড়ছেন লুকাস হার্নান্ডেজ ও দীর্ঘ সময়ের অধিনায়ক দিয়েগো গদিন। লুকাস যাচ্ছেন বায়ার্ন মিউনিখে। গদিনের নতুন ক্লাবের কথা জানা যায়নি।

স্পেনীয় ফুটবল মহলের খবর, গ্রিজ়ম্যানের জন্যই বার্সেলোনায় কুতিনহোর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে গেল। গত বছরের জানুয়ারিতে লিভারপুল থেকে বার্সায় যোগ দেওয়ার পরে ব্রাজিলীয় তারকা দারুণ কিছু খেলেননি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের অনুমান, ব্রাজিলীয় তারকার বার্সা ছাড়ার সম্ভাবনা প্রবল। কুতিনহোর মতোই বার্সায় লুইস সুয়ারেসের ভবিষ্যৎ নিয়ে নতুন জল্পনা শুরু হয়েছে। তবে ব্রাজিলীয় তারকার থেকে তিনি বার্সায় বেশি সফল। সঙ্গে মেসির ঘনিষ্ঠ বলে তাঁকে হয়তো ছাড়া হবে না। এ দিকে, কুতিনহোর চেলসিতে যাওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। সেখানে তাঁকে এডেন অ্যাজ়ারের বিকল্প ভাবা হচ্ছে। অ্যাজ়ারের রিয়াল মাদ্রিদে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।