• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বিদ্রুপ সামলে নেবেন স্মিথ, বলছেন স্টিভ

Smith
প্রত্যয়ী: অ্যাশেজের জন্য স্মিথের প্রস্তুতিতে মুগ্ধ স্টিভ। রয়টার্স

স্টিভ স্মিথের পাশে দাঁড়ালেন স্টিভ ওয়। কিংবদন্তি স্টিভ জানেন, আসন্ন অ্যাশেজ সিরিজেও সেই দক্ষিণ আফ্রিকার বল বিকৃতি কাণ্ডের জেরে প্রতিকূলতার সামনে পড়তে পারেন এখনকার দলের স্টিভ। বিশ্বকাপের মতো আবার হয়তো ইংরেজ দর্শকেরা তাঁকে বিদ্রুপে বিদ্ধ করবেন। কিন্তু প্রাক্তন অধিনায়ক স্টিভ মনে করেন, এ হেন শত্রুতাকে জয় করার ক্ষমতা স্মিথের আছে। 

ঘটনাচক্রে স্টিভ ওয় এ বারের অ্যাশেজে টিম পেনদের অস্ট্রেলিয়া দলের সঙ্গে থাকবেন পরামর্শদাতার ভূমিকায় (মেন্টর)। অস্ট্রেলীয় বোর্ডের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্টিভ বলেছেন, ‘‘স্মিথকে আমি ভাল করে জানি। যে কোনও ঝড়ঝাপটা সামলে বেরিয়ে আসার ক্ষমতা ওর আছে। যদি কেউ মনে করে, ও এ বার কিছুই করতে পারবে না অথবা কেউ বলে যে, আগের সেই আগ্রাসন ওর মধ্যে নেই, তা হলে কিন্তু সে মারাত্মক ভুল করবে। আসলে যারা অন্যের ক্ষতি করতে এ সব বলতে ভালবাসে, তারা চুপ করবে না। কিন্তু দেখবেন, স্মিথ এই বিপদ থেকে বেরিয়ে আসার রাস্তা ঠিক বার করে ফেলবে।’’

বল নির্বাসন কাণ্ডে জড়িয়ে এক বছরের নির্বাসন ভোগ করে স্টিভ স্মিথ টেস্ট ক্রিকেটে ফিরছেন অ্যাশেজ সিরিজেই। তার আগে বিশ্বকাপ দলে ফিরে গোটা টুর্নামেন্ট মিলিয়ে প্রায় চারশোর কাছাকাছি রান করে চমকে দিয়েছেন তিরিশ বছর বয়সি প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক স্মিথ। তাও মাত্র দ’শটি ম্যাচে। ওয় বলেছেন, ‘‘ছেলেটা দারুণ প্রস্তুতি নিচ্ছে। ওর কাজ করার ধরনটা সত্যি ব্যতিক্রমী। নেটেও স্ট্রোক নেওয়ার কোনও সুযোগ ছাড়ে না। বলতে গেলে সব বলই মারতে চায়। এ রকম সচরাচর দেখা যায় না। আমি তো বলব, প্রথম টেস্টের জন্য স্মিথ দারুণ তৈরি হয়েই নামবে।’’ 

স্মিথ ছাড়াও আসন্ন অ্যাশেজেই অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দলে ফিরছেন বল বিকৃতি কাণ্ডে শাস্তি ভোগ করা অন্য দুই ক্রিকেটার ডেভিড ওয়ার্নার এবং ক্যামেরন ব্যানক্রফ্ট। শেষ বার ইংল্যান্ডে হওয়া অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল ওয়ের নেতৃত্বেই। স্মিথের সঙ্গে বিশ্বকাপের সময় যাই হোক, ওয় কিন্তু মনে করেন ইংল্যান্ডের বেশির ভাগ দর্শকই ক্রিকেটটা বোঝেন এবং অত্যন্ত ভদ্র। ‘‘ইংল্যান্ডে প্রচুর খেলেছি। ইংরেজরা যে ইংল্যান্ড জিতুক চাইবে তাতে অবাক হওয়ার কী আছে। তা সত্ত্বেও বিপক্ষ দল ভাল খেললে ওরা কিন্তু তার তারিফ করতে জানে। আমরা অতীতে ইংল্যান্ডে সফল হয়েছি। তখনও মনে হয়েছে, ইংরেজ দর্শকেরা অতুলনীয়। ক্রিকেটটা এত ভাল আর কোনও দেশের দর্শক বোঝে না।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘সব সময় ওরা ভাল ক্রিকেটের প্রশংসা করে। কেউ ভাল খেললে তাকে সঙ্গে সঙ্গে অভিনন্দনও জানায়। তা সে যে দলেরই হোক। কিন্তু তবু বলব যে, দর্শকদের মধ্যে সামান্য একটা অংশ আমাদের কাজটা কঠিন করে দিতে পারে। কিন্তু আমাদের দলের প্রত্যেকে পেশাদার। হাঁসের পিঠে জল থাকলে যেমন কিছু এসে যায় না, আমরাও তাই এ সব নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট করতে চাই না। অতীতেও মাঠে ওদের খারাপ অভিজ্ঞতার সামনে পড়তে হয়েছে। কিন্তু কখনওই খেলায় তার প্রভাব পড়েনি। আমি নিশ্চিত, এ বারও তেমন কিছু হবে না।’’ শোনা যাচ্ছে, প্রথম টেস্টে বিশ্রাম দেওয়া হতে পারে দলের এক নম্বর পেসার মিচেল স্টার্ককে। তাঁকে খেলোনো হবে দ্বিতীয় টেস্টে লর্ডসে। যেখানে সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপে দু’টি ম্যাচে তিনি নয় উইকেট নিয়েছেন।

বিশ্বকাপে খেলায় বল বিকৃতিতে নির্বাসিত দুই ক্রিকেটার স্মিথ ও ওয়ার্নার ইতিমধ্যেই ইংরেজ দর্শকদের মুখোমুখি হয়েছেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার ওয়ান ডে দলে ছিলেন না ব্যানক্রফ্ট। অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম দলে এ বার থাকার সম্ভাবনা তাঁরও। যাঁর বিরুদ্ধেই বল বিকৃত করার মূল অভিযোগ উঠেছিল। ব্যানক্রফ্ট প্রসঙ্গে তাই অস্ট্রেলীয় কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার বলেছেন, ‘‘ও প্রথম দলে থাকলে সেটা একটা গল্পের মতো ব্যাপার হবে। তবে কেপ টাউনের ঘটনার পরে ব্যানক্রফ্ট কিন্তু নীরবে নিজেকে তৈরি করেছে। জানি মাঠে নামলে ওকেও বিদ্রুপের সামনে পড়তে হবে। তবে মানসিক দিক থেকে ও বেশ শক্তপোক্ত।’’     

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন