তাঁকে কেন্দ্র করেই বিশ্বকাপে ষষ্ঠবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন ব্রাজিল ভক্তেরা। কিন্তু ‘অভিশপ্ত’ কাজ়ানে শুক্রবার বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালে হারের জন্য তাঁকেই অনেকে দায়ী করছেন। তিনি, নেমার দা সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)-ও মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত।

বেলজিয়ামের হারের পরে সংবাদমাধ্যমকে এড়িয়ে গিয়েছিলেন নেমার। তবে শনিবার রাশিয়া ছাড়ার আগে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যক্ত করলেন যন্ত্রণা। ইনস্টাগ্রামে নেমার লিখেছেন, ‘‘আমার জীবনের সব চেয়ে দুঃখের মুহূর্ত। যন্ত্রণা আরও বেশি হওয়ার কারণ, আমরা আরও অনেক দূর এগোতে পারতাম। ইতিহাস গড়তে পারতাম...কিন্তু সেটা এ বার আর হল না। নিশ্চিত নই, ফের ফুটবল খেলার মতো শক্তি পাব কি না। আশা করি, ঈশ্বর আমাকে যথেষ্ট শক্তি দেবেন সব কিছুর মোকাবিলা করার।’’ এখানেই শেষ নয়। তিনি লিখেছেন, ‘‘হেরে গেলেও ঈশ্বরের কাছে আমি সব সময়ই কৃতজ্ঞ থাকব। কারণ, প্রত্যাবর্তনের রাস্তা আমার চেয়ে অনেক ভাল চেনেন ঈশ্বর।’’ ব্রাজিল জাতীয় দলের জার্সি পরে খেলার সুযোগ পেয়ে যে তিনি গর্বিত, জানাতে ভোলেননি। লিখেছেন, ‘‘আমি গর্বিত ব্রাজিলের জাতীয় দলের সদস্য হতে পেরে। এই বিশ্বকাপে হয়তো স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে। কিন্তু আমাদের মস্তিষ্ক ও মন থেকে স্বপ্ন কেউ কেড়ে নিতে পারবে না।’’ বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট হিসেবে রাশিয়ায় পা দিয়েছিলেন নেমারেরা। কিন্তু বেলজিয়াম ম্যাচে বিপর্যয়ের পরে শিবির জুড়ে শোকের ছায়া। ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভা মুখ ঢেকে টিম হোটেল ছাড়লেন। ফিলিপে কুটিনহো, উইলিয়ানরা থমথমে মুখে রওনা দিলেন বিমানবন্দরের উদ্দেশে। মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বদলে গিয়েছে ছবিটা।