Advertisement
৩০ জানুয়ারি ২০২৩
গত মরসুমে রানার্স এটিকে-মোহনবাগান। নবম হয়েছিল এসসি ইস্টবেঙ্গল। এই মরসুমে কতটা তৈরি এই দুই দল…
Roy krishna

ISL 2021-22: আজ শুরু আইএসএল

গত মরসুমে রানার্স এটিকে-মোহনবাগান। নবম হয়েছিল এসসি ইস্টবেঙ্গল। এই মরসুমে কতটা তৈরি এই দুই দল…

গোলমেশিন: রয় কৃষ্ণ এব  আস্থা: ড্যানিয়েল চিমা।

গোলমেশিন: রয় কৃষ্ণ এব আস্থা: ড্যানিয়েল চিমা। ছবি টুইটার।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০২১ ০৫:২৬
Share: Save:

এটিকে-মোহনবাগান

Advertisement

আইএসএলে গত বছর অভিষেকেই ফাইনালে উঠেছিল এটিকে-মোহনবাগান। এ বার নবাগত দুই বিদেশি ও দু’একজন স্বদেশি ফুটবলার দলে এলেও মোটামুটি ভাবে আগের বারের দলটাই ধরে রেখেছে সবুজ-মেরুন শিবির। আজ শুক্রবার আইএসএলে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামছে তারা।

তুরুপের তাস: কলকাতার দলের হয়ে গত দুই মরসুম ধরেই গোলমেশিনের দায়িত্ব পালন করছেন ফিজি থেকে আসা স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণ। গোল করতে ও করাতে দক্ষ কৃষ্ণ ২০১৯-২০ মরসুমে ২১ ম্যাচে ১৫ গোল করেছিলেন এবং করিয়েছিলেন ৬টি গোল। গত বছর সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে কৃষ্ণ ২৩ ম্যাচে ১৪টি গোল করার পাশাপাশি করিয়েছেন ৮টি গোল। বক্সে অর্ধেক সুযোগকেও গোলে পরিণত করেন। চোরা গতি ও প্রখর ফুটবল বুদ্ধির জন্য বাকি দলগুলোর রক্ষণে ত্রাস অতীতে অস্ট্রেলিয়ার ‍‘এ’ লিগে খেলে আসা রয়।

শক্তি: গত বছর এটিকে-মোহনবাগান কোচ আন্তোনিয়ো লোপেস হাবাসকে ফুটবলারদের চোট-আঘাত ভুগিয়েছিল। বাম প্রাপ্ত দিয়ে আক্রমণ প্রায় ছিল না। এ বার মুম্বই সিটি এফসি থেকে মাঝমাঠের ফুটবলার হুগো বুমোস, ইউরো ২০২০ খেলা ফিনল্যান্ডের জনি কাউকোর আগমনে তাঁর দল আরও শক্তিশালী। আক্রমণে লিস্টন কোলাসো আসায় বিকল্প প্রচুর।

Advertisement

দুর্বলতা: রক্ষণে সন্দেশ জিঙ্ঘন এ বার দল ছেড়েছেন। ফলে তিরির সঙ্গে নতুন স্টপার জুটি তৈরি করা হাবাসের কাছে পরীক্ষা। কারণ, সন্দেশের মতো নির্ভরশীল নন দীপক টাংরি।

এসসি ইস্টবেঙ্গল

গত বারের কোচ লিভারপুল কিংবদন্তি রবি ফাউলার এ বার দলের সঙ্গে নেই। দেখা যাবে না, গত বছর লাল-হলুদ জার্সি গায়ে দুরন্ত ফুটবল খেলা ব্রাইট এনোবাখারেকেও। কোচের দায়িত্বে এ বার এসেছেন স্পেনীয় ম্যানুয়েল (মানলো) দিয়াস। দলের বিদেশিরাও নতুন। রবিবার জামশেদপুর এফসি-র বিরুদ্ধে আইএসএলের প্রথম ম্যাচ এসসি ইস্টবেঙ্গলের।

তুরুপের তাস: ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড ম্যানেজার ওয়ে গুন্নার সোলসারের একদা ছাত্র ড্যানিয়েল চিমাকে নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখছেন লাল-হলুদ সমর্থকেরা। নাইজিরিয়ার এই ফুটবলার বিধ্বংসী স্ট্রাইকার। দু’পায়ে গোলার মতো শট। বিপক্ষকে কাটিয়ে যেতে পারেন। গোল করতে ও করাতে ভালবাসেন। দলকে নেতৃত্ব দিয়ে খেলান।

শক্তি: এটিকে-মোহনবাগান থেকে গত বছর সোনার গ্লাভস জয়ী গোলকিপার অরিন্দম ভট্টাচার্য আসায় এ বার এই জায়গা অনেক পোক্ত। তবে মানলোর দলের সব চেয়ে বড় শক্তি তাঁদের আক্রমণ ভাগ। ড্যানিয়েল চিমা ও আন্তোনিয়ো পেরোসেভিচ জু’টি বিপক্ষের রক্ষণে গতিতে হানা দিয়ে গোল করে যান। অনুশীলন ম্যাচেও দু’জনের এই বোঝাপড়া দেখা গিয়েছে। রক্ষণে টমিস্লাভ মর্সেলা-ফ্রানিয়ো পর্চে জুটিও বেশ নির্ভরযোগ্য।

দুর্বলতা: মহম্মদ রফিক, রাজু গায়কোয়াড়, জ্যাকিচন্দ সিংহ, অমরজিৎ কিয়ামেরা দলে থাকলেও অভিজ্ঞ ভারতীয় ফুটবলারের অভাব রয়েছে দলে। রাইট ব্যাকে অঙ্কিত মুখোপাধ্যায় চোট পেলে বা কার্ড সমস্যায় খেলতে না পারলে পরিবর্ত কে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.