Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

খেলা

আরসিবি-রাজস্থান ম্যাচ ভেস্তে যাওয়ায় কতটা লাভ হল নাইটদের?

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০১ মে ২০১৯ ১৪:৫৩
জমে উঠেছে আইপিএল। গ্রুপ পর্বের খেলা প্রায় শেষের দিকে। প্লে অফের টিকিট ইতিমধ্যেই জোগাড় করে ফেলেছে চেন্নাই সুপার কিংস ও দিল্লি ক্যাপিটালসের। ইতিমধ্যেই প্লেঅফের দৌড় থেকে ছিটকে গিয়েছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। বাকি পাঁচটি দল দুটো জায়গার জন্য লড়ছে। দেখে নেওয়া যাক এই মুহূর্তে কোন দল কোথায় দাঁড়িয়ে।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর— মঙ্গলবার আরসিবি ও রাজস্থান রয়্যালসের ম্যাচ বৃষ্টির জন্য ভেস্তে যাওয়ায় বিরাট কোহালির দলের প্লে অফে যাওয়ার আশা শেষ হয়ে গেল। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্সের আর একটিই  ম্যাচ বাকি রয়েছে। চলতি মাসের ৪ তারিখ আরসিবি-র সামনে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।
Advertisement
রাজস্থান রয়্যালস— রাজস্থান রয়্যালসের প্লে অফে যাওয়ার আশা বেঁচে রয়েছে। রাজস্থান এখন পয়েন্ট তালিকায় পাঁচ নম্বরে রয়েছে। তাদের ঠিক উপরেই রয়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। রাজস্থানের শেষ ম্যাচ দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে।

সেই ম্যাচটা জিততেই হবে রাজস্থানকে। তবে শুধু জিতলেই হবে না, বড় ব্যবধানে জিতে নেট রান রেট বাড়িয়ে রাখতে হবে। তার পরেও নির্ভর করে থাকতে হবে অন্য দলের উপরে। দিল্লিকে হারালে রাজস্থান রয়্যালসের পয়েন্ট হবে ১৩। সে ক্ষেত্রে সানরাইজার্সকে হারতে হবে বাকি দুটো ম্যাচেই।
Advertisement
সানরাইজার্স হায়দরাবাদ— সানরাইজার্সের ম্যাচ বাকি দু’টি। দুটোই অ্যাওয়ে ম্যাচ। দুটো ম্যাচ জিতলেই সানরাইজার্স হায়দরাবাদ পৌঁছে যাবে প্লে অফে। এমনকি সানরাইজার্স যদি একটি ম্যাচ জেতে এবং একটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যায়, সে ক্ষেত্রেও তারাই যাবে প্লে অফে।

সানরাইজার্স যদি একটি ম্যাচে জেতে, সে ক্ষেত্রেও নেট রান রেটের মাধ্যমে প্লে অফে যাওয়ার আশা বেঁচে থাকবে। যদি দুটো ম্যাচই হারে সানরাইজার্স, তখনও প্লে অফে যাওয়ার আশা বেঁচে থাকবে হায়দরাবাদের। সানরাইজার্সের পয়েন্ট ১২। নেট রান রেট ভাল থাকলে তারা যেতেই পারে প্লে অফে।

কলকাতা নাইট রাইডার্স—  ১২ ম্যাচ থেকে ১০ পয়েন্ট কেকেআর-এর। বাকি দুটো ম্যাচ জিততেই হবে নাইটদের। এই মুহূর্তে কেকেআর-এর নেট রান রেট ০.১। দুটো ম্যাচ জিতলে নাইটদের রান রেট আরও বাড়বে। পয়েন্ট সমান সমান হয়ে গেলে সে ক্ষেত্রে নেট রান রেটের সুবিধা নিতে পারে নাইটরা।

যদি কেকেআর পরবর্তী দুটো ম্যাচই জেতে এবং সানরাইজার্স মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ও আরসিবি-র কাছে দুটো ম্যাচেই হারে, তা হলে নাইটরা ১৪ পয়েন্ট পেয়ে পৌঁছে যাবে প্লে অফে। তখন আর নেট রান রেটের প্রয়োজন পড়বে না।

কেকেআর যদি দুটো ম্যাচের মধ্যে একটিতে জেতে, তা হলেও প্লে অফে পৌঁছতে পারে। সে ক্ষেত্রে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে বাকি দুটো ম্যাচেই হারতে হবে এবং রাজস্থান রয়্যালসকে শেষ ম্যাচে দিল্লির কাছে হারতে হবে। আরসিবি-রাজস্থান ম্যাচ ভেস্তে যাওয়ায় রাজস্থান ১ পয়েন্ট পেয়েছে। এ ক্ষেত্রে অবশ্য লাভ হয়েছে নাইটদের।

এর পরেও সিএসকে-কিংস ইলেভেন পঞ্জাব ম্যাচের উপরে অপেক্ষা করে থাকতে হবে নাইটদের। চেন্নাই সুপার কিংস যদি কিংস ইলেভেনকে হারায়, তা হলে প্লে অফে কেকেআর।

কিংস ইলেভেন পঞ্জাব— ১২টি  ম্যাচ থেকে ১০ পয়েন্ট কিংস ইলেভেন পঞ্জাবেরও। সানরাইজার্স যদি দুটো ম্যাচ জেতে এবং মুম্বই ইন্ডিয়ান্স হারিয়ে দেয় কেকেআর-কে, তা হলে বাকি দুটো ম্যাচ জিতলেও লাভের লাভ হবে না কিংস ইলেভেনের। নেট রান রেটের দিক থেকে কিংস ইলেভেন অনকেটাই পিছিয়ে।

চারটি দলের পয়েন্ট যদি ১৪ হয়, সে ক্ষেত্রে কিংস ইলেভেন ছিটকে যাবে। এটা তখনই সম্ভব যদি মুম্বই ইন্ডিয়ান্স তাদের শেষ দু’টি ম্যাচে হারে এবং সানরাইজার্স দুটোর মধ্যে একটি ম্যাচে হার মানে।

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স— কলকাতা নাইট রাইডার্সের কাছে শেষ ম্যাচে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স হার মানলেও প্লে অফে পৌঁছনোর দৌড়ে ভাল জায়গাতেই রয়েছে রোহিত শর্মার দল। ১২ ম্যাচ থেকে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের সংগ্রহ ১৪ পয়েন্ট। দুটোর মধ্যে যে কোনও একটি ম্যাচ জিতলেই প্লে অফে পৌঁছে যাবে মুম্বই। শেষ দুটো ম্যাচ জিতলে ‘টপ টু’য়ে শেষ করতে পারে তারা।

যদি শেষ দুটো ম্যাচেও হার মানে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স, তবুও প্লে অফে যেতে পারে মুম্বই। সে ক্ষেত্রে বাকি ম্যাচগুলোর ফল তাদের পক্ষে যেতে হবে। নেট রান রেটের দিক থেকে মুম্বই ভাল জায়গাতেই রয়েছে। সানরাইজার্স এক নম্বরে রয়েছে নেট রান রেটের দিক থেকে। তার পরেই মুম্বই।