Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

খেলা

এ বছরই আইপিএলে শেষ বার দেখা যেতে পারে এই মহাতারকাদের

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৫ মার্চ ২০২০ ১২:০৯
আইপিএলের দামামা বেজে গিয়েছে। শুরু হয়ে গিয়েছে প্রস্তুতি। অপেক্ষায় দিন গুনছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। একই ভাবে তৈরি হচ্ছেন ক্রিকেটাররাও। যাঁদের কারও কারও আবার এটাই হতে পারে শেষ আইপিএল। বয়সের জন্যই হোক বা চোটের জন্য, বা পারফরম্যান্সের অভাব, পরবর্তী আইপিএলে এঁদের না-ও দেখা যেতে পারে।

সৌরভ তিওয়ারিকে একসময় ‘বাঁ-হাতি মহেন্দ্র সিংহ ধোনি’ বলা হত। ২০০৮ সালে বিরাট কোহালির অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলেও তিনি ছিলেন। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএল কেরিয়ার শুরু করেছিলেন সৌরভ। ২০১০ সালে প্রতিযোগিতার সেরা অনূর্ধ্ব-২৩ ক্রিকেটার ঘোষিতও হয়েছিলেন।
Advertisement
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাত্র তিনটি ওয়ানডে খেলেছিলেন সৌরভ তিওয়ারি। বিশেষ সাফল্য পাননি। বাস্তব হল, ২০১০ সালের পর থেকে তাঁর কেরিয়ার আর এগোতে পারেনি। বয়স এখন মাত্র ৩০। কিন্তু, যেন এর মধ্যেই প্রবীণের দলে নাম লিখিয়ে ফেলেছেন তিনি।

২০১৭ সাল থেকে ধরলে আইপিএলে মাত্র একটিই ম্যাচ খেলেছেন সৌরভ। যা থেকে ইঙ্গিত যে পরের আইপিএলে তাঁর দল পাওয়া খুব কঠিন। এ বার ৫০ লক্ষ টাকায় তাঁকে নিয়েছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। কিন্তু, তাঁকে খেলানো হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় থাকছেই।
Advertisement
পার্থিব পটেল রয়েছেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর দলে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের সম্ভাবনাময় কেরিয়ার পুরোপুরি মেলে ধরতে পারেননি তিনিও। ২০০২ সালে ১৭ বছর ১৫৩ দিন বয়সে অভিষেক ঘটিয়েছিলেন তিনি। খারাপ খেলেননি, কিন্তু মহেন্দ্র সিংহ ধোনির উত্থানে জায়গা হারান তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার পরও সব মিলিয়ে ২৫ টেস্ট ও ৩৮ একদিনের ম্যাচ খেলেছেন পার্থিব। টেস্টে ৩১.১৩ গড়ে ৯৩৪ রান করেছেন। নিয়েছেন ৬২ ক্যাচ। করেছেন ১০ স্টাম্পিং। ওয়ানডে ক্রিকেটে ৩৮ ম্যাচে ২৩.৭৪ গড়ে ৭৩৬ রান করেছেন। নিয়েছেন ৩০ ক্যাচ। করেছেন ৯ স্টাম্পিং।

পার্থিবের বয়স এখন ৩৬। গুজরাতের অধিনায়ক হিসেবে রঞ্জি সেমিফাইনালে সদ্য রানও করেছেন। কিন্তু, সেরা সময় নিশ্চিত ভাবে পেরিয়ে এসেছেন তিনি। ধারাভাষ্যকার, বিশেষজ্ঞ  হিসেবে কাজ করতেও তাই দেখা যাচ্ছে তাঁকে। যদি এ বার প্রথম একাদশে সুযোগ পান আর পেয়েও কাজে লাগাতে না পারেন, তবে এটাই তাঁর শেষ আইপিএল।

অম্বাতি রায়ুডুর কাছে গত কয়েক বছর অদ্ভুত কেটেছে। ২০১৮ সালের আইপিএলে ১৬ ম্যাচে ৬০২ রান করেছিলেন তিনি। স্ট্রাইক রেট ছিল ১৪৯.৭৫। সেই বছরের মাঝামাঝি এসেছিলেন জাতীয় দলে। সেখানে নিজেকে প্রতিষ্ঠাও করেন চার নম্বরে।

কিন্তু বিশ্বকাপের দল থেকে বাদ পড়ে বিতর্কিত টুইট করে বসেন রায়ুডু। এর পরই সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নেন হঠাৎই। তার পর সেই সিদ্ধান্ত আবার প্রত্যাহারও করে নেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলতে থাকেন হায়দরাবাদের হয়ে। আইপিএলে তিনি আছেন চেন্নাই সুপার কিংস দলে।

গত মরসুমে আইপিএলে একেবারেই ছন্দে ছিলেন না রায়ুডু। ১৭ ম্যাচে করেন ২৮২ রান। স্ট্রাইক রেট ছিল একশোরও নীচে। এ বছর ৩৫ বয়স হয়ে যাচ্ছে তাঁর। যদি এ বারের আইপিএলে ভাল না খেলেন, তবে পরের বছর দল খুঁজে পেতে সমস্যায় পড়তেই পারেন।

হরভজন সিংয়ের আন্তর্জাতিক কেরিয়ার রীতিমতো ঝলমলে। ১০৮ টেস্ট, ২৩৬ ওয়ানডে, ২৮ টি-টোয়েন্টিতে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। দুই দশকেরও বেশি সময়ের কেরিয়ার তাঁর। আইপিএলে শুরুতে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে খেলতেন তিনি।

২০০৮ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অপরিহার্য সদস্য ছিলেন হরভজন। সেই সময় তিন বার আইপিএলে চ্যাম্পিয়নও হয় তাঁর দল। ২০১৮ সালের মুম্বই থেকে চেন্নাই সুপার কিংসের সদস্য ভাজ্জি। সেই বছর ১৩ ম্যাচে ৭ উইকেট নেন তিনি। গড় ছিল ৩৮.৫৭।

২০১৯ সালের আইপিএলে ১১ ম্যাচে ১৯.৫০ গড়ে ১৬ উইকেট নেন হরভজন। কিন্তু এই বছরই ৪০ বছর হয়ে যাচ্ছে তাঁর। এর মধ্যে হিন্দি ধারাভাষ্যকার হিসেবে সুনামও অর্জন করেছেন তিনি। এ বারের আইপিএলের পর সব ধরনের ফরম্যাট থেকে অবসরের ইঙ্গিত প্রকাশও করেছেন।

শেন ওয়াটসন টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সম্পদ। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডারের হিসেবে ১৫০ সপ্তাহ কাটিয়েছিলেন তিনি। আইপিএলে একাধিক দলের হয়ে খেলেছেন তিনি। আর প্রতি দলের হয়েই সাফল্য পেয়েছেন।

গত দুই বছরে আইপিএলেও চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে রীতিমতো সফল তিনি। এই দুই বছরে সিএসকে-র হয়ে ৩২ ম্যাচে ৩২-এর বেশি গড়ে ৯৫৩ রান করেছেন। ২০১৮ সালে প্রায় একার হাতেই আইপিএল জিতিয়েছেন চেন্নাইকে। ফাইনালে সানরাইজার্সের বিরুদ্ধে রান তাড়ায় ১১৭ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

এই বছর ৩৯ হচ্ছে ওয়াটসনের। অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে নিয়েছেন অবসর। গত বছর বিগ ব্যাশ লিগেও শেষ ম্যাচ খেলেছেন। ফলে, আইপিএলে এটাই হয়তো তাঁর শেষ মরসুম। পরের বার হয়তো ওয়াটসনকে আর দেখা যাবে না আইপিএলের দুনিয়ায়।