Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৮ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

নারাইন বল করবেন, আশায় নাইট শিবির

নিজস্ব সংবাদদাতা
০৬ এপ্রিল ২০১৮ ০৪:১৩
লক্ষ্য: প্রতিপক্ষ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। রবিবারের ম্যাচের জন্য তৈরি হচ্ছেন সুনীল নারাইন। সঙ্গী কোচ জাক কালিস। ছবি: সুদীপ্ত ভৌমিক

লক্ষ্য: প্রতিপক্ষ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। রবিবারের ম্যাচের জন্য তৈরি হচ্ছেন সুনীল নারাইন। সঙ্গী কোচ জাক কালিস। ছবি: সুদীপ্ত ভৌমিক

ইডেনে তাঁর সেই ছক্কাগুলোর কথা মনে আছে? চোখ ধাঁধানো বাউন্ডারিও প্রচুর মেরেছিলেন সুনীল নারাইন। গতবার আইপিএলে ওপেন করতে নেমে চার ম্যাচে ৫৯ বলে ১১৯ রান করেছিলেন তিনি। এর মধ্যে ৬০ রান তুলেছিলেন শুধু বাউন্ডারির বাইরে থেকেই।

এ বার সেই নারাইনকে সম্ভবত দেখা যাবে না ওপেন করতে। নাইটরা ক্রিস লিনের সঙ্গে রবিন উথাপ্পা-কে ওপেনার হিসেবে নামাবে বলে ঠিক করে রেখেছে। কেউ চোট পেলে বা ফর্ম হারালে গম্ভীরের ছেড়ে যাওয়া নীতিতে ফিরে যেতে পারে নাইটরা।

ওপেনারদের নিয়ে পরিকল্পনার মতো মিডল অর্ডারও তৈরি। আর প্রথম ম্যাচের জন্য বোলিং আক্রমণ চূড়ান্ত হয়ে যাবে দু’একদিনের মধ্যেই। এ বার তাদের নতুন স্লোগানটা ঠিকঠাক লাগছে। ‘কেকেআর হ্যায় তৈয়ার’।

Advertisement

ওপেনার নারাইন প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার বিকেলে ইডেনে দাঁড়িয়ে দলের ব্যাটিং পরামর্শদাতা সাইমন ক্যাটিচ বলেন, ‘‘গত বার লিন চোট পেয়ে বসে গিয়েছিল বলে নারাইনকে দিয়ে ওপেন করানো হয়েছিল ঠিকই। তবে ওকে আমরা দলের অন্যতম প্রধান স্পিনার হিসেবেই ধরি।’’ সম্ভাব্য ওপেনিং জুটি নিয়ে ক্যাটিচ বলে দিলেন, ‘‘এ বার গম্ভীর দলে না থাকলেও যথেষ্ট অভিজ্ঞ দুই ওপেনার রয়েছে, লিন ও উথাপ্পা। রান তোলার দিক থেকে উথাপ্পা আইপিএলে সেরা পাঁচের মধ্যে আছে। আর লিন যথেষ্ট আগ্রাসী। ওদের জুটিটা ভাল।’’

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইডেনের নেটে এই দু’জনকেই শুরুতে ব্যাট করতে দেখা যায়। চোট সারিয়ে ফেরা লিন সেই চেনা আগ্রাসী মেজাজে। পাশের নেটেই তাঁর সঙ্গে পাল্লা দেওয়ার চেষ্টা করে গেলেন উথাপ্পা। নারাইন ব্যাট হাতে ঢুকলেন সবার শেষে। তার আগে অবশ্য বোলিং করলেন চুটিয়ে।

মিডল-অর্ডার সাজানো নিয়েও খুব একটা চাপে নেই নাইট শিবির। অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক তো শহরে পা রেখেই জানিয়ে দিয়েছেন, ভারতীয় দলের মতো পাঁচ-ছয়ে নামবেন না তিনি। নাইটদের ব্যাটিং কোচও জানিয়ে দিলেন, মিডল অর্ডারের হাল অধিনায়ককেই ধরতে হবে। যে-হেতু মণীশ পাণ্ডে এ বার নেই। কার্তিককেই তাঁর জায়গা নিতে হবে বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন বাঁ হাতি ব্যাটসম্যান ক্যাটিচ। বলেন, ‘‘মণীশ গত বছর পর্যন্ত মিডল অর্ডারে আমাদের বড় ভরসা ছিল। এ বার ওর জায়গা কার্তিককেই নিতে হবে। গত বার মুম্বইয়ের হয়ে ভাল খেলা নীতিশ রানাকে পেয়েছি আমরা।’’ এ ছাড়া আন্দ্রে রাসেল তো রয়েছেনই।

কেকেআর-এর মিডল অর্ডারে দু-একটা জায়গা দলের তরুণদের জন্য থাকবে বলে মনে করছেন ক্যাটিচ। তিনি বলেন, ‘‘ওরা প্রতিভাবান ঠিকই, তবে কতটা ফিট, তা আগে দেখতে হবে। আমাদের দলে যা অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান আছে, তাতে তরুণদের জন্য দু-একটার বেশি জায়গা থাকবে না হয়তো।’’ শিবিরের খবর, শুভমান-রিঙ্কু সিংহদের হয়তো পাঁচ-ছয় নম্বরে দেখা যেতে পারে।

অস্ট্রেলীয় পেসার মিচেল স্টার্ক চোট পেয়ে হঠাৎ আইপিএল থেকে ছিটকে যাওয়ায় কেকেআর শিবিরে প্রায় বজ্রাঘাত হয়েছিল। তাঁর বদলি হিসেবে টম কুরান-কে নিয়ে এসে কেকেআর কতটা সফল হবে, সেটাই প্রশ্ন। বৃহস্পতিবারই কলকাতায় এসে পৌঁছলেন দক্ষিণ আফ্রিকাজাত ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার। এই প্রথম ভারতের মাটিতে পা রেখে তিনি বললেন, ‘‘কেকেআর দলটা অসাধারণ। মাঠে নামার জন্য মুখিয়ে আছি আমি।’’ কুরান এখানকার পরিবেশের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নেবেন কী করে, সেটা বড় প্রশ্ন। তবে তাঁকে দিয়ে বোলিং ওপেন করানোর ভাবনা চলছে নাইট শিবিরে। বিনয় কুমারও তৈরি মাঠে নামার জন্য।

ক্যাটিচ বলেন, ‘‘স্টার্ক নেই ঠিকই। তবে নতুন বল ব্যবহারের মতো আর এক বোলার পেয়ে গিয়েছি আমরা। জনসন বা কুরানের মধ্যে একজন অথবা দু’জনকে দিয়েই বোলিং শুরু করানো যেতে পারে। তা নির্ভর করছে পরিবেশের উপর।’’ ইডেনে সন্ধ্যায় গঙ্গার হাওয়া এবং পেস ও গতির উইকেটে এই দু’জনকে শুরুতে বোলিং করতে দেখলে অবাক হওয়ার থাকবে না।

আরও পড়ুন

Advertisement