এক হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে অবশেষে জামিন পেলেন নবান্ন অভিযানে ধৃত বাম যুব সংগঠনের ২২ জন আন্দোলনকারী। তাঁদের তরফে আইনজীবীরা দাবি করেছেন, পুলিশ উপযুক্ত তথ্যপ্রমাণ দিতে না পারায় সকলের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। সোমবার ওই ২২ জন বিক্ষোভকারী জামিন পাওয়ার পরে আদালত চত্বরে জড়ো হওয়া বাম যুব ও ছাত্র সংগঠনের সদস্যেরা লাল আবির উড়িয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

গত শুক্রবার বাম যুব ও ছাত্র সংগঠনের তরফে নবান্ন অভিযানের ডাক দেওয়া হয়েছিল। হাওড়ার মল্লিক ফটক-বঙ্গবাসী এলাকায় পুলিশ মিছিল আটকালে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ শুরু হয়। ঘটনাস্থল থেকেই গ্রেফতার করা হয় ২২ জনকে, যাঁদের মধ্যে দুই মহিলাও ছিলেন। ধৃতদের বিরুদ্ধে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, কাচের বোতল, লঙ্কার গুঁড়ো, রং মেশানো জলের বোতল, বোমা ছোড়া-সহ পুলিশের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে জামিন-অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু হয়। আদালতে তোলা হলে ২২ জনকে দু’দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

সোমবার ছিল এই মামলার শুনানি। সকাল থেকে উত্তেজনা ছিল আদালত চত্বরে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সামলাতে মোতায়েন ছিল পর্যাপ্ত পুলিশ। বেলা ১২টা থেকে বাম যুব ও ছাত্র সংগঠনের সদস্যেরা আদালত সংলগ্ন বঙ্কিম সেতুর নীচে জড়ো হতে শুরু করেন। সেখানে তাঁরা বিক্ষোভ সমাবেশও করেন। এরই মধ্যে আদালত এক হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে ধৃতদের জামিন মঞ্জুর করে। সংগঠনের পক্ষে আইনজীবী মিহির বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, কাজ ও চাকরি— এই দুই গুরুত্বপূর্ণ দাবি নিয়ে আন্দোলন করছিলেন যুব ও ছাত্রেরা। তা করতে গিয়ে ওই দিন পুলিশের লাঠির ঘায়ে কম-বেশি জখম হন ৬৫ জন। পুলিশও অভিযোগের সত্যতায় কোনও প্রমাণ দাখিল করতে পারেনি। তাই ধৃতদের জামিন মঞ্জুর করেছেন বিচারক।