বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী ন্যূনতম হাজিরা নেই। তবু পরীক্ষায় বসতে দেওয়ার দাবিতে এক শ্রেণির পড়ুয়া শুক্রবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছে যান। এ দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে গিয়ে বিক্ষোভ দেখান সেন্ট পলস, সুরেন্দ্রনাথ, উমেশচন্দ্র কলেজের পড়ুয়ারা। মুরারিপুকুর স্যর গুরুদাস মহাবিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা একই দাবিতে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে যাঁরা বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন, তাঁদের একাংশ এ দিন বিশ্ববিদ্যালয়-কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দেখা করেন। তবে সহ-উপাচার্য (শিক্ষা) দীপক কর পরে বলেন, ‘‘চয়েস বেসড ক্রেডিট সিস্টেম (সিবিসিএস)-এর নিয়মকানুন সংশ্লিষ্ট কলেজগুলিকে অনেক আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেই নিয়মই বলবৎ থাকবে।’’ সিবিসিএস পদ্ধতিতে পরীক্ষায় বসতে গেলে পড়ুয়াদের ৬০ শতাংশ হাজিরা বাধ্যতামূলক। প্রথম সিমেস্টারের পরীক্ষা এসে গিয়েছে। দেখা যাচ্ছে, কলেজে কলেজে বহু পড়ুয়ার ৬০ শতাংশ হাজিরা নেই। এই ধরনের পড়ুয়ার বিরুদ্ধে কোথাও হাজিরা খাতা লুট, কোথাও অধ্যক্ষ ঘেরাও, কোথাও টাকা দিয়ে হাজিরা বাড়ানোর ব্যবস্থা করার অভিযোগ উঠছে। 

স্যর গুরুদাস মহাবিদ্যালয়ের বিএ, বিএসসি প্রথম বর্ষের 

পড়ুয়ারা এ দিন রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখান। বিক্ষোভকারীদের বক্তব্য, তাঁরা দেরিতে ভর্তি হয়েছিলেন। তত দিনে ক্লাস শুরু হয়ে গিয়েছিল। ইউনিয়নের দাদারা আশ্বাস দিয়েছিলেন, দিনে দু’তিনটে ক্লাস করে ইউনিয়ন রুমে বসে থাকলে আর কোনও সমস্যা থাকবে না। এ বার তাঁরা পড়েছেন অথৈ জলে। কলেজ-কর্তৃপক্ষ অবশ্য নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল। অধ্যক্ষ মণিশঙ্কর রায় বলেন, ‘‘বিএ, বিএসসির প্রায় ৫৫ শতাংশ পড়ুয়ার ন্যূনতম হাজিরা নেই। বিশ্ববিদ্যালয় যা নির্দেশ দিয়েছে, তাতে ওদের পরীক্ষায় বসতে দেওয়া যাচ্ছে না।’’