পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েত ভোটে হিংসার বিরুদ্ধে গোটা দেশে বিক্ষোভ দেখালেও রাষ্ট্রপতি শাসন জারির দাবি তুলছে না সিপিএম। আজ দিল্লিতে দলের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির দাবি, তৃণমূলের রাশ আলগা হচ্ছে বলেই তারা হিংসায় মেতে উঠেছে। সাংবিধানিক কর্তৃপক্ষরা সবই দেখছেন। ইয়েচুরি বলেন, ‘‘সিপিএম কোনও দিনই রাষ্ট্রপতি শাসন জারির পক্ষপাতী নয়। তবে পশ্চিমবঙ্গের এই হিংসা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টও উদ্বিগ্ন। সব চেয়ে বড় কথা, মানুষও প্রতিরোধ শুরু করেছেন।’’ ইয়েচুরি বলেন, ‘‘বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ যেমন বিরোধী-মুক্ত ভারত চাইছেন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তেমনই বিরোধী-মুক্ত পঞ্চায়েত চাইছেন। ভোটের সময় ৩৪ শতাংশ আসনে বিরোধীদের প্রার্থীই দিতে দেওয়া হয়নি। ভোটের পরেও বিরোধীরা যেখানে জিতবে, আর এক দফা হিংসা হবে সেখানে।’’ বাংলায় পঞ্চায়েত ভোটে হিংসার বিরুদ্ধে আজ গোটা দেশের পার্টির সব শাখাকে বিক্ষোভ দেখানোর নির্দেশ দেন ইয়েচুরি। তাঁর যুক্তি, হিংসা না-হলে অন্তত ৫০ শতাংশ আসন সিপিএম জিতত। পূর্বস্থলীর মতো যে বিধানসভা কেন্দ্রে সিপিএম জিতেছিল, সেখানেও ৯৩ শতাংশ আসনে প্রার্থী দিতে পারেনি কোনও বিরোধী।

তৃণমূল আজ অভিযোগ তুলেছে, বাম জমানাতেও হিংসা হত। ইয়েচুরির যুক্তি, এই অজুহাত তুলে হিংসা ছড়ানোর যৌক্তিকতা নেই। আর সিপিএমের আমলে যদি এত হিংসা হত, তৃণমূল ক্ষমতায় আসতে পারত?