তাদের আইন অমান্য কর্মসূচির প্রথম দিনই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা উস্কে দিল বিজেপি। ওই আশঙ্কার কারণ দেখিয়েই তাদের প্রস্তাবিত রথযাত্রার অনুমতি দেয়নি রাজ্য সরকার। তার প্রতিবাদে সোমবার আরামবাগে আইন অমান্য কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘হাতে বাঁশ আছে? ওটা সঙ্গে রাখবেন। ঝাড়ে বাঁশ থাকুক না থাকুক, হাতে যেন বাঁশ থাকে। যারা আইন, সংবিধান, গণতন্ত্র মানে না, তাদের সঙ্গে কোনও ভদ্রতা নেই। যে ভাবে কর্ণ, শিশুপাল, দুর্যোধনকে মারা হয়েছিল সে ভাবেই মারব আমরা। বিজেপি করি বলে যারা চমকাচ্ছে, ধমকাচ্ছে, তাদের নাম লিখে রাখুন। কাউকে ছাড়া হবে না। সে চার তলা বাড়ি করুক, এসি গাড়ি করুক, কিছুই ভোগ করতে দেব না।’’

দিলীপবাবুর দাবি, বিজেপি তৃণমূলকে হারাতে পারে বলেই তাদের সভা করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ দিনও আরামবাগে প্রতিবাদসভার অনুমতি পাননি বলেই তাঁদের আইন অমান্য করতে হচ্ছে। এই প্রেক্ষিতে দিলীপবাবুর হুঁশিয়ারি, ‘‘অনুমতি না দিলে সেটা না নিয়েই সভা করব। যেমন আজকে করছি।’’

তৃণমূল নেতৃত্ব অবশ্য দিলীপবাবুর এই সব ‘উস্কানি’কে আমল দিতেই রাজি নন। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘৪২টা লোকসভা কোন ছাড়, আগে ওঁরা ৪২টা বুথে লোক পেয়ে দেখান। তার পরে কথা বলবেন।’’