• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

টাকা নেই, তবু অনেক দিয়েছি : মুখ্যমন্ত্রী

Mamata Banerjee
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। —ফাইল চিত্র।

কেন্দ্রের আর্থিক বঞ্চনা এবং ঋণের বোঝা সত্ত্বেও রাজ্য সরকার এক কোটি ১৮ লক্ষ মানুষকে সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় এনেছে। এর পর ওই প্রকল্পে যুক্ত করা হবে খেতমজুরদের। ভবিষ্যতে রাজ্য সরকারের হাতে টাকা এলে সরকারি কর্মীদের ১৭% বকেয়া মহার্ঘ ভাতাও মিটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। বিধানসভায় শুক্রবার এই ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বিরোধীরা অভিযোগ করেন, সরকারি কর্মীদের মহার্ঘ ভাতা বকেয়া রয়েছে। তার জবাবে মমতা জানান, ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে নিয়েছে রাজ্য। তার মধ্যেই ১২৫% মহার্ঘ ভাতা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘আমরা ক্ষমতায় আসার আগে ৯০% মহার্ঘ ভাতা বকেয়া ছিল। কেন্দ্রের হাতে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক, টাকার হুণ্ডি আছে। আমাদের হাতে নেই। কেন্দ্র বছরে দু’বার ডিএ দিতে পারলেও আমরা পারি না।’’ সবে সরকারি কর্মীদের টাকা বাড়িয়েছি। এখন টাকা নেই। এখনই আর পারব না। পরে হাতে টাকা এলে খেপে খেপে ১৭% দেখে দেব।’’ বিরোধী বাম অবশ্য দাবি করেছে, ২০১১ সালে তারা ক্ষমতা থেকে যাওয়ার সময় ৯০% নয়, ১৬% মহার্ঘ ভাতা বকেয়া ছিল।      

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বিধানসভায় আরও জানান, কেন্দ্র রাজ্যের প্রাপ্য ৩৮ হাজার কোটি টাকা দেয়নি। তার পরে সংশোধিত বরাদ্দে আরও ১১ হাজার কোটি টাকা থেকে বঞ্চিত করেছে। সব মিলিয়ে কেন্দ্রের কাছে প্রাপ্য প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা থেকে রাজ্য বঞ্চিত হয়েছে। তা সত্ত্বেও রাজ্য যে সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প চালাচ্ছে, তাকে ‘দারুণ প্রকল্প’ নাম দেওয়া উচিত ছিল বলে মমতার মত। কারণ ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, ‘‘গাড়িচালক, সব্জির দোকানের মালিক, বিড়ি শ্রমিক— এ রকম এক কোটি ১৮ লক্ষ মানুষ এই প্রকল্পের আওতায় আছেন। এর পর খেতমজুরদের জন্যও এই প্রকল্প আনব। মাসে ৫৫ টাকা করে এবং বছরে ৬৬০ টাকা করে রাজ্য সরকার দেবে। ৬০ বছরে তাঁরা প্রভিডেন্ট ফান্ডের মতো আড়াই লক্ষ টাকা পাবেন। খেতমজুররা যুক্ত হলে ওই প্রকল্পের আওতায় আসবেন এক কোটি ৩০ বা ৪০ বা ৫০ লক্ষ মানুষ।’’ সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় থাকা যে সব মানুষ প্রিমিয়াম চালাতে পারেননি, তাঁদের নাম প্রকল্প থেকে বাদ দিতেও নিষেধ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন