খরিফ মরসুমে রাজ্যে পেঁয়াজের উৎপাদন বাড়াতে বিশেষ জাতের বীজ ও চাষের জন্য হেক্টর-পিছু ৪০ শতাংশ ভর্তুকি দিতে শুরু করেছে রাজ্যের উদ্যানপালন দফতর। ওই দফতর সূত্রে খবর, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, হুগলি, বর্ধমান, নদিয়া, মুর্শিদাবাদ জেলায় চলতি আর্থিক বছরে ১১৫টি গুদামঘর তৈরির জন্য অর্থ সাহায্য করা হবে। সব মিলিয়ে উদ্যানপালন দফতর আগামী তিন বছরে কমপক্ষে ১৫ কোটি টাকা খরচ করবে।

বাজার বিশেষজ্ঞদের হিসেবে রাজ্যে বছরে ৮-৯ লক্ষ টনেরও বেশি পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। তার অনেকটাই ভিন্‌ রাজ্য থেকে আমদানি করতে হয়। উদ্যানপালন দফতরের কর্তাদের দাবি, শীতের সময় রাজ্যে পেঁয়াজ চাষ শুরু হয় এবং মে-র মধ্যে তা শেষ হয়ে যায়। জুন-জুলাইয়ের পর থেকেই রাজ্যে পেঁয়াজের আকাল দেখা দিতে শুরু করে। প্রতি বছরই সরবরাহে ঘাটতির জন্য পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকে। এই অবস্থায় ভাল ফলনের জন্য নাশিক থেকে বীজের জোগান শুরু হয়েছে। সরকারি হিসেবে রাজ্যে এখন ছ’লক্ষ টনের কিছু বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হচ্ছে।