উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করার পরে নৌ বাহিনীতে যোগ দেওয়ার জন্য পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারতের বাসিন্দাদের আর দূরের রাজ্যে পাড়ি দিতে হবে না। তাঁদের শারীরিক, মানসিক সহ অন্যান্য পরীক্ষার জন্য এ বার পশ্চিমবঙ্গে নতুন ‘সার্ভিস সিলেকশন বোর্ড’ (এসএসবি) তৈরি করল ভারতীয় নৌবাহিনী। 

নৌসেনা সূত্রের খবর, এত দিন পর্যন্ত বাহিনীতে যোগ দেওয়ার জন্য প্রার্থীদের যেতে হত বেঙ্গালুরু, বিশাখাপত্তনম, কোয়েম্বত্তুর ও ভোপালে। কারণ ওই চারটি জায়গায় রয়েছে নৌ সেনার সার্ভিস সিলেকশন বোর্ড। দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ড হারবারে পঞ্চম কেন্দ্রটি তৈরি হওয়ার পরে নৌসেনার মানচিত্রে সংযোজন ঘটল বাংলারও। পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারতের বাসিন্দাদের ভিন রাজ্যে পাড়ি দিতে একদিনে যেমন অনেকটা সময় লাগত, তেমনি খরচও হত ভালই। এ রাজ্যে এসএসবি তৈরি হওয়ায় সেই সময় ও খরচ দু’য়েরই সাশ্রয় হবে বলে মনে করছেন নৌসেনা কর্তারা। 

গত মঙ্গলবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ড হারবারের হুগলি নদীর পাশে পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রথম ভারতীয় নৌ সেনা সার্ভিস সিলেকশন বোর্ড বা ‘এসএসবি’-র উদ্বোধন করেন ভারতীয় নৌসেনার প্রধান ভাইস অ্যাডমিরাল সুনীল লানবা। এ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত এবং উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে প্রার্থীরা আসবেন ডায়মন্ড হারবারের এই এসএসবি-তে। সেটাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় অর্থনীতিতেও কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্য আসবে বলে মনে করছেন বাসিন্দারা। 

দীর্ঘ দিন ধরেই পূর্ব ভারতে নিয়োগ কেন্দ্র খোলার পরিকল্পনা করেছিল নৌ বাহিনী। সেই মতো ১০ বছর আগে এই পঞ্চম সিলেকশন বোর্ড তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল। মাঝে দু’বছর আইনি জটিলতায় কাজ বন্ধ ছিল। পরে ফের তা শুরু হয়। ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে চিনের গতিবিধিকে কড়া হাতে মোকাবিলা করতে ভারতীয় নৌ সেনাকে আরও শক্তিশালী করতে চাইছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। সেই লক্ষ্যেই একাধিক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। 

সুনীল লানবা বলেন, ‘‘আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ভারতীয় নৌ সেনাকে আরও শক্তিশালী করা হবে। সেই জন্যই একগুচ্ছ পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে অনেকগুলি বাস্তবায়িতও করা হয়েছে।’’ তিনি জানান, দেশের উত্তর-পূর্ব রাজ্য থেকে যুব সম্প্রদায় যাতে আরও বেশি করে এগিয়ে আসেন তার জন্য এই ‘লুক ইস্ট’ নীতি নেওয়া হয়েছে।

নৌ সেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, ডায়মন্ড হারবারে এই কেন্দ্রে এসে বিভিন্ন পরীক্ষা দিতে হবে প্রার্থীদের। পাঁচ দিন ধরে চলবে সেই প্রক্রিয়াটি। প্রতিটি ব্যাচে ১৬০ জন করে থাকবেন। পরীক্ষা চলাকালীন পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা আলাদা থাকার জন্যও ব্যবস্থা থাকবে এই কেন্দ্রেই।  সেখানে পাশ করার পরে ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমি (এডিএ)  কিংবা নাভাল অ্যাকাডেমিতে যোগ দেওয়ার সুযোগ পাবেন উত্তীর্ণরা। নৌ সেনা প্রধান জানান, বাহিনীতে মহিলাদের গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তাঁদেরও প্রথম সারিতে নিয়ে আসা হচ্ছে। ওই দিনের অনুষ্ঠানে পূর্বাঞ্চলীয় নৌবাহিনীর ফ্ল্যাগ অফিসার ইন কম্যান্ডিং ভাইস অ্যাডমিরাল করমবীর সিংহ-সহ অন্যান্যরা।