কলকাতার বিভিন্ন মেট্রো প্রকল্পে জট-জটিলতার শেষ নেই। সেই সব সমস্যার সুরাহা করতে প্রায় দু’বছর পরে রাজ্য প্রশাসনের সঙ্গে মেট্রো প্রকল্প নির্মাণের দায়িত্বে থাকা সংস্থার কর্তাদের বৈঠক হল শুক্রবার।

নবান্নে মুখ্যসচিব মলয় দে-র নেতৃত্বে ওই বৈঠকে কেএমআরসিএল, আরভিএনএল, কেএমডিএ, রাজ্য পরিবহণ দফতর এবং কেএমডিএ-র প্রতিনিধিরা ছিলেন। নির্মীয়মাণ প্রকল্পগুলি কখন চালু হবে, নির্মাণ সংস্থার কাছে তা জানতে চায় রাজ্য। নির্মাণ সংস্থার প্রতিনিধিরা প্রকল্পের অগ্রগতি এবং সমস্যার কথা জানান।

বৈঠকে নোয়াপাড়া-ব্যারাকপুর, নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর এবং জোকা-বি বা দী বাগ মেট্রো প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ব্যারাকপুর পর্যন্ত মেট্রো সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে বিটি রোডের নীচে জলের পাইপলাইন সরানোর প্রসঙ্গে ওঠে। ওই প্রকল্পে জট কাটার ইঙ্গিত মিলেছে। কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে ধরে ওই মেট্রো নির্মাণের প্রস্তাব দিয়েছিল রাজ্য। কিন্তু জনবসতিহীন এলাকা দিয়ে মেট্রো নির্মাণ না-করার যুক্তিতে রেল সেই প্রস্তাব খারিজ করে দেয়। এ দিনের বৈঠকে রেল বিকাশ নিগম লিমিটেডের (আরভিএনএল) তরফে জানানো হয়, বিকল্প জলের লাইনের ব্যবস্থা করে ওখানেই মেট্রোপথের স্তম্ভ নির্মাণ করতে চান তাঁরা। রাজ্য সেই প্রস্তাব খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে। বরাহনগরে মেট্রো স্টেশন নির্মাণের জন্য পুজোর পরে বিটি রোডের এক দিক বন্ধ রাখতে হবে বলে জানায় আরভিএনএল। 

জোকা-বি বা দী বাগ মেট্রোয় ডায়মন্ড হারবার রোডে ৫৩টি জায়গায় জমি দখলমুক্ত করতে প্রশাসনের সাহায্য চায় আরভিএনএল। মাঝেরহাট স্টেশনের কাজের জন্য ৫৭৫ বর্গ মিটার জমিও দখলমুক্ত করা প্রয়োজন। সমস্যা মেটাতে সদর্থক আশ্বাস দিয়েছে রাজ্য। মোমিনপুর থেকে ময়দান হয়ে মাটির নীচে এসপ্লানেড পর্যন্ত সুড়ঙ্গ নির্মাণের কাজ আগামী জুনে শুরু হবে বলে জানায় আরভিএনএল। 

নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর মেট্রো প্রকল্পে চিংড়িঘাটার কাছে ইএম বাইপাসে যান চলাচলের সমস্যার জন্য ৩১৮ নম্বর স্তম্ভ নির্মাণে আপত্তি তুলেছে কেএমডিএ। মেট্রো-কর্তৃপক্ষ প্রস্তাব মেনে স্তম্ভ সরাতে রাজি নন। সমস্যা খতিয়ে দেখতে নগরোন্নয়ন দফতরের সচিব সুব্রত গুপ্তের নেতৃত্বে একটি কমিটি গড়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন (কেএমআরসিএল) জানায়, ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো শেষ হবে হলদিরামের কাছে। সেখান থেকে বিমানবন্দরের যাত্রীদের জন্য একটি ‘ইন্টারসেকশন’ তৈরি হবে নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর মেট্রোপথে। সম্প্রতি নোয়াপাড়া-বারাসত মেট্রো নিউ ব্যারাকপুর পর্যন্ত সম্প্রসারণের অনুমতি দিয়েছে।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।