মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরবঙ্গে থাকাকালীনই মঙ্গলবার দার্জিলিঙের সাংসদ রাজু বিস্তার উপর তৃণমূল সমর্থকদের হামলার অভিযোগ তুলল বিজেপি। এ দিন কালিম্পংয়ে একটি স্কুলের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গেলে বেশ কয়েক জন তৃণমূল সমর্থক তাঁর গাড়ির উপর চড়াও হয় বলে অভিযোগ। অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পাহাড় এবং উত্তরবঙ্গের তৃণমূল নেতারা। ঘটনার প্রতিবাদে এ দিন বিকেলে শিলিগুড়িতে বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীর কুশপুতুল দাহ করতে যায়। তখন পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাক্কাধাক্কিও হয়। রাতে রাজু বিস্তা জানান, তাঁর উপরে হামলার বিষয়টি তিনি সংসদের প্রিভিলেজ কমিটির কাছে জানাবেন। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার ব্যবস্থা নিয়ে  কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকেও জানাবেন।

এ দিন বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ কালিম্পংয়ের সিনজিতে যাচ্ছিলেন সাংসদ। পথে মন্দিরখোলা এলাকায় চারপুলের কাছে তাঁর উপর হঠাৎই বেশ কিছু তৃণমূল সমর্থক, কিছু মদ্যপ যুবক তাঁর গাড়ির উপর হামলা করে বলে অভিযোগ। একটি বিবৃতিতে তাঁর উপর খুকুরি নিয়ে হামলা এবং গাড়িতে পাথর ছোড়ার অভিযোগ তুলেছেন রাজু। সাংসদের দাবি, বিজেপি এবং বিমলপন্থী মোর্চার বেশ কিছু সমর্থকও আহত হয়েছেন। সাংসদের দাবি, তাঁর উপর হামলার আশঙ্কা করে সোমবার কালিম্পংয়ের পুলিশ সুপারকে ফোন করা হয়। পুলিশ তাঁকে নিরাপত্তা নিয়ে আশ্বস্তও করে। তবু এই নিয়ে পাহাড়ে এক মাসের মধ্যেই তাঁর উপর দ্বিতীয়বার হামলা হল, অভিযোগ জানান রাজু। বিজেপির দার্জিলিং জেলা সভাপতি (সমতল) অভিজিৎ রায়চৌধুরী বলেন, ‘‘রাজু বিস্তাকে হত্যার চেষ্টা হচ্ছে।’’

তৃণমূলের উত্তরবঙ্গ কোর কমিটির চেয়ারম্যান গৌতম দেব অবশ্য বলেন, ‘‘এই ঘটনায় তৃণমূলের কেউ জড়িত নয়। উনি প্রচারে আসার জন্য এ সব করেছেন বলেই মনে হচ্ছে।’’ দার্জিলিঙের তৃণমূল সভাপতি লালবাহাদুর রাই বলেন, ‘‘সাংসদ হয়েও কাজ করেন না বলে তাঁর নিজের দলের কিছু মদ্যপ যুবক তার উপর হামলা করেছে বলে শুনেছি।’’ জেলার এসপি সূর্যপ্রতাপ যাদব ব্যস্ত থাকায় তাঁর সঙ্গে কথা বলা যায়নি।