ফল ঘোষণার পরে যে-আনন্দ হয়েছিল, রিভিউ এবং স্ক্রুটিনির ফল প্রকাশের পরে অনেক মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরই সেই আনন্দ কিছুটা ম্লান হয়ে গেল। কিছু পরীক্ষার্থীর আনন্দ বেড়েও গেল কিছুটা। কেননা বুধবার এ বছরের মাধ্যমিকের রিভিউ এবং স্ক্রুটিনির ফল ঘোষণার পরে দেখা যাচ্ছে, ব্যাপক রদবদল ঘটেছে মেধা-তালিকায়। কেউ কেউ কিছুটা উপরে উঠেছে, নেমেও গিয়েছে কয়েক জন।

মে মাসে মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পরে দেখা যায়, প্রথম দশে রয়েছে মোট ৫১ জন। স্ক্রুটিনিতে তৃতীয় স্থানে নম্বর গিয়েছে বদলে। এর ফলে চতুর্থ স্থান থেকে সকলেই মেধা-তালিকায় এক ধাপ করে নেমে গিয়েছে। একাদশ স্থানে চলে গিয়েছে এক ঝাঁক পরীক্ষার্থী। আবার দশম স্থানে চলে এসেছে কয়েক জন। 

৬৮৯ পেয়ে যৌথ ভাবে তৃতীয় হয়েছিল রায়গঞ্জ গার্লস হাইস্কুলের ক্যামেলিয়া রায় এবং শান্তিপুর মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুলের ব্রতীন মণ্ডল। স্ক্রুটিনিতে এক নম্বর বেড়ে যাওয়ায় ৬৯০ পেয়ে ক্যামেলিয়া এখন একাই আছে তৃতীয় স্থানে। ব্রতীন চলে গিয়েছে চতুর্থ স্থানে। যে-পনেরো জন দশম হয়েছিল, এর ফলে তারা এখন একাদশ। নম্বর বেড়ে একাদশে ঠাঁই হয়েছে আরও আট জনের।

যে-ন’জন আগে নবম স্থানে ছিল, তাদের সঙ্গে যোগ হয়েছে আরও আট জন। তাদের নম্বর ৬৮২। তারাই এখন দশম স্থান অধিকার করল। মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় জানান, ১০ লক্ষ ৫০ হাজার ৩৯৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে রিভিউ এবং স্ক্রুটিনির জন্য আবেদন করেছিল ৩৬,৮৭৪ জন। শুধু রিভিউয়ের জন্য আবেদন করে ২৭০৩ জন। নম্বর বদল হয়েছে ৬৮৩ জনের। স্ক্রুটিনির জন্য আবেদন করে ৩৪,১৭১ জন। ৯২১২ জনের নম্বর বদলেছে।