স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর উদ্‌যাপনকে কেন্দ্র করে সম্প্রীতি সপ্তাহ পালন করবে রাজ্য সরকার। রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের প্রস্তাব মেনে পাঠ্যক্রমে ওই বক্তৃতা অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার নবান্নে শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর উদ্‌যাপন কমিটির বৈঠকে এই প্রস্তাবে সিলমোহর দেন মুখ্যমন্ত্রী।

সম্প্রীতি সপ্তাহ পালিত হবে ১১-১৯ সেপ্টেম্বর। ১১ তারিখে এই কর্মসূচির সূচনা হবে বেলুড় মঠে। ১৯ সেপ্টেম্বর নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে সমাপ্তি অনুষ্ঠান। মঠ ও মিশনের সাধারণ সম্পাদক স্বামী সুবীরানন্দ এ দিনের বৈঠকে প্রস্তাব দেন, পাঠ্যক্রমে শিকাগো বক্তৃতা অন্তর্ভুক্ত করা হোক। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘আগামী শিক্ষাবর্ষেই ওই বক্তৃতা পাঠ্যক্রমে চলে আসবে। কোন ক্লাস থেকে আসবে, তার চিন্তাভাবনা চলছে। সম্প্রীতি সপ্তাহে পড়ুয়াদের ওই বক্তৃতার কথা জানানোর ব্যবস্থা করতে স্কুল-কলেজগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পদযাত্রা, সেমিনার, রাজ্য স্তরে অনুষ্ঠান ছাড়াও স্বামীজির পৈতৃক বাড়িতে ‘লাইট অ্যান্ড সাউন্ড’ (আলো-ধ্বনি)-এর ব্যবস্থা হবে।’’

সুবীরানন্দ জানান, শিকাগোর যে-সভাগৃহে স্বামীজি বক্তৃতা দেন, সেই আর্ট ইনস্টিটিউট কলম্বাস হলেই ২৬ অগস্ট থেকে ১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠান করার চেষ্টা চলছে। সভাগৃহ কবে পাওয়া যাবে, তার ভিত্তিতে চূড়ান্ত হবে দিনক্ষণ। সেই অনুষ্ঠানে এ দিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানিয়েছে মিশন। সুবীরানন্দ বলেন, ‘‘ভারতে একমাত্র পশ্চিমবঙ্গ সরকারই শিকাগো বক্তৃতার ১২৫তম বর্ষ উদ্‌যাপন করছে। ১৮৯৩ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর সহিষ্ণুতার বাণী প্রচার করেছিলেন স্বামীজি। এখন ধর্মীয় কুসংস্কার এবং ধর্মান্ধতা চতুর্দিক গ্রাস করছে। সহিষ্ণুতা এবং গ্রহণযোগ্যতা এখন সব চেয়ে বেশি প্রয়োজন।’’

শিক্ষামন্ত্রী জানান, উৎকর্ষ কেন্দ্রের জন্য মিশনকে জমি, ১০ কোটি টাকা দিয়েছে রাজ্য। শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর উদ্‌যাপন উপলক্ষে দেওয়া হল আরও ১০ কোটি টাকা।