কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক মুখ দেখা গেল আবার। নিউ আলিপুর কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র দীপক পাণ্ডেকে পদার্থবিদ্যায় অনার্স নিয়ে পড়ার সম্মতি দিলেন বিশ্ববিদ্যালয়-কর্তৃপক্ষ। দীপকের দু’টি হাতই কনুই থেকে কাটা। লেখেন পা দিয়ে। সেই জন্য পদার্থবিদ্যার মতো প্র্যাক্টিক্যাল-নির্ভর বিষয় নিয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব কি না, প্রশ্ন উঠছিল বিভিন্ন শিবিরে। মঙ্গলবার কলেজের অধ্যক্ষ জয়দীপ ষড়ঙ্গী জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে মৌখিক ভাবে তাঁদের জানানো হয়েছে, দীপক পদার্থবিদ্যায় অনার্স পড়তে পারবেন।

চলতি শিক্ষাবর্ষে অনলাইনে নিউ আলিপুর কলেজে প্রথম বর্ষে পদার্থবিদ্যা অনার্স নিয়ে ভর্তি হয়েছেন দীপক। কিন্তু তাঁর যা শারীরিক অবস্থা, তাতে আদৌ লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবেন কি না, তা নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন দেখা দিয়েছিল। কারণ পদার্থবিদ্যায় প্র্যাক্টিক্যাল করতেই হবে। অন্যের সাহায্য ছাড়া দীপকের পক্ষে পদার্থবিদ্যার প্র্যাক্টিক্যাল ক্লাস করা অসম্ভব। তাই কলেজের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছিল।

শিক্ষা সূত্রের খবর, দীপকের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে কিছুটা দ্বিধা করছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়-কর্তৃপক্ষ। কারণ, ‘এক্সপেরিমেন্ট’-এর পাশাপাশি ‘প্রোগ্রাম’ অন্যের সহায়তা নিয়ে লেখা সম্ভব কি না, সেই বিষয়ে সন্দিহান ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিজ্ঞজনেরাও। শেষ পর্যন্ত সবুজ সঙ্কেত দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়। এ দিন জয়দীপবাবু বলেন, ‘‘বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে মৌখিক ভাবে জানানো হয়েছে, দীপক পদার্থবিদ্যা নিয়েই পড়তে পারবে। আমাদের কলেজের ছাত্র হিসেবে ওর রেজিস্ট্রেশন হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের লিখিত নির্দেশের অপেক্ষায় আছি আমরা।’’