টেলিভিশনে বরুণ সোবতি পরিচিত নাম। অর্ণব সিংহ রায়জ়াদার (ইস পেয়ার কো কেয়া নাম দু?) চরিত্রে তিনি কলেজপড়ুয়া থেকে চল্লিশোর্ধ্ব মহিলাদের স্বপ্নের পুরুষ। টেলিভিশনের অভাবনীয় সাফল্যের পরে বড় পর্দাতেও কাজ করেছেন। তবে বেশির ভাগ ইন্ডিপেন্ডেট প্রজেক্টে। মিতালী ঘোষালের ‘টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস’-এ বাঙালি ক্রিকেট এজেন্ট রণ সেনের চরিত্রে দেখা যাবে বরুণকে। ‘‘গত দু’বছরে এই ছবির জন্য বার পনেরো কলকাতায় এসেছি। ইডেন গার্ডেনে, এখানকার সরকারি দফতরে শুটিং করেছি,’’ বলছিলেন তিনি।

টেলিভিশনের মতো সাফল্য বড় পর্দায় না পেলেও আক্ষেপ নেই বরুণের। ‘‘আমি সিকিয়োর্ড। সাফল্য বা ব্যর্থতা কোনওটাই আমাকে বিচলিত করে না। যাঁরা সাফল্যে ভেসে যান, তাঁরা বাস্তবে পর্দার চরিত্র হয়ে উঠতে চান। আর বাস্তব জীবনেও তাঁরা নিজেকে নিয়ে সন্তুষ্ট নন। আমার সে সব সমস্যা নেই,’’ স্পষ্ট কথা বরুণের।

ওয়েবেও বিভিন্ন চরিত্র করছেন বরুণ। ‘‘গত কয়েক বছরে হলিউডে যেমন কাজ হচ্ছে, ওয়েবের দৌলতে সেই মাপেরই কিছু প্রস্তাব পাচ্ছি। আর আমার কাছে স্ক্রিপ্টই শেষ কথা। এমন চিত্রনাট্য যা আমার বুদ্ধিমত্তাকে চ্যালেঞ্জ করবে, তার জন্য আমি সব সময়েই তৈরি,’’ বললেন তিনি। বাণিজ্যিক ছবিতে এখনও সে ভাবে না দেখা গেলেও বরুণের মনে সংশয় নেই, ‘‘দর্শক কী চাইছেন, সেটা ভাবি না। আমি যেমন কাজ করতে চাই, তেমনটাই করব।’’

নন-ফিকশন পড়তে বরুণ খুব ভালবাসেন। এখন তাঁর সফরসঙ্গী, ‘দ্য স্ক্রিনপ্লে অব বিফোর সানরাইজ় অ্যান্ড বিফোর সানসেট’, ‘ডেরা সচ্চা সৌদা অ্যান্ড গুরমিত রাম রহিম: আ ডেকেড লং ইনভেস্টিগেশন’।