প্র: সলমন খান নাকি কপিল শর্মা এবং আপনার মধ্যে মধ্যস্থতা করতে চেয়েছিলেন? 

উ: আসলে সলমন ভাই প্রোডিউস করছেন কপিল শর্মার শো। উনি আমাকে বলেছিলেন, কপিলের শোয়ে কাজ করার জন্য। আমি সময় চেয়েছিলাম ভাবার। ওই সময়েই ‘কানপুর ওয়ালে খুরানাস’-এর অফার পাই। সেটা আমার কাছে বেশি লোভনীয় ছিল। সলমন ভাই খুব ভাল মানুষ। আমার বক্তব্যটা বুঝতে পারেন। তবে কপিল আর গিন্নিকে নতুন জীবনের জন্য অনেক শুভেচ্ছা।

প্র: আপনাকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবেই দেখা যায়। ব্যক্তিগত জীবনে আপনি কী রকম? 

উ: আমি খুব সাধারণ এবং বোরিং। অনেকেই মনে করেন, ক্যামেরার সামনে সবাইকে হাসাই বলে, আমি মানুষটাও নিশ্চয়ই সে রকম। এমনকি আমার সঙ্গে বন্ধুত্বও করেন এই ভেবে যে, সবাইকে হাসাব। 

প্র: সলমনের সঙ্গে ‘ভারত’ ছবিতে কাজের কী রকম অভিজ্ঞতা হল? 

উ: খুবই ভাল। বিরাট বাজেটের ছবি। এর আগে সলমন ভাই ‘লাভযাত্রী’র জন্য ডেকেছিলেন। রাম কপূর যে চরিত্রটা করেছেন, সেটা আমাকে অফার করা হয়েছিল। তখন ব্যস্ত থাকায় ছবিটা করতে পারিনি। দ্বিতীয় বার ভাই যখন ডাকলেন, তখনই রাজি হয়ে গেলাম। 

প্র: ‘পটাকা’তে সকলের এত ভাল অভিনয় সত্ত্বেও ছবিটা চলল না... 

উ: ছবি চলা বা না চলা আমার হাতে নেই। একজন অভিনেতা হিসেবে যা করার, তা মন দিয়ে করেছি। বিশাল ভরদ্বাজের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাই আলাদা। 

প্র: আপনার সফলতায় পরিবারের কী ভূমিকা? 

উ: আমার স্ত্রী এবং পুত্র দু’জনেই লাইমলাইট থেকে দূরে থাকে। স্ত্রী ইন্টিরিয়র ডিজ়াইনার। কিছু দিন বাদে বাদেই ঘরের সাজ বদলে যায়। যদিও পয়সাটা আমার খরচ হয় (হেসে)। হাতে বেশি সময় থাকলে পরিবারের সঙ্গে বেড়াতে যাই। টাকা একটু বেশি রোজগার করছি বলে, ভাল জামাকাপড় পরি।