আশপাশ দিয়ে বরুণ ধওয়ন, টাইগার শ্রফ এমনকী, নতুন আসা কার্তিক আরিয়ানের ছবিও বক্স অফিসে বাজি মেরে দিল। অথচ  সিংহাসনে বসে যাঁর রাজপাট চালানোর কথা, সে কিনা পরপর ফ্লপ দিচ্ছে! নয়তো কোনও মতে মাঝারি গোছের একটা হিট... অথচ রণবীর কপূরের কেরিয়ার তো এমন হওয়ার কথা ছিল না।

কপূর পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরি কেরিয়ারের শুরুতে আলতো হোঁচট খেলেও সামলে নিয়েছিলেন। ‘ওয়েক আপ সিড’, ‘আজব প্রেম কী গজব কহানি’, ‘রকেট সিংহ...’, ‘বরফি’, ‘ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি’.... কোনও ছবি বক্স অফিসে সফল, কোথাও রণবীরের অভিনয় নিন্দুকদের নিশ্চুপ করে দেয়।

‘সঞ্জু’ দিয়ে ফের তিনি সকলের মুখ বন্ধ করে দিয়েছেন। সঞ্জয় দত্তর জীবনের পরতগুলো রণবীর ছাড়া আর কেউ বোধহয় অতটা নিখুঁত করে তুলে ধরতে পারতেন না। নিজের একশো শতাংশ এই ছবির জন্য উজাড় করে দিয়েছিলেন রণবীর। সে অবশ্য তিনি তাঁর সব ছবিতেই দেন। কিন্তু বক্স অফিসের জন্য অন্য ম্যাজিক লাগে। এত দিনে সেটা হয়েছে। ‘সঞ্জু’র বক্স অফিস রিপোর্ট বলছে, পাঁচ দিনে ১৮৬ কোটি টাকা কালেকশন করেছে ছবি। চার দিকের ফিসফাস বন্ধ করার জন্য এই হিটটা ভীষণ ভাবে দরকার ছিল রণবীরের।

আরও পড়ুন: ‘বাবাকে এখনও ভয় পাই’

২০০৯-’১৩ পর্যন্ত পরপর সাফল্য। রণবীরের জাদুতে মুগ্ধ সকলে। ‘ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি’র পর থেকেই ফ্লপের বোঝা চাপতে থাকে। ‘রয়’, ‘বম্বে ভেলভেট’, ‘তমাশা’ পরপর ব্যর্থতা। ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ বা ‘জগ্গা জাসুস’ মোটামুটি হিট করলেও কেরিয়ারের বাঁক ঘুরিয়ে দিতে পারেনি। তত দিনে বরুণ ধওয়ন ‘হাম্পটি শর্মা...’ থেকে ‘অক্টোবর’ করে ফেলেছেন। টাইগার শ্রফের মতো উঠতি হিরোর ‘বাগী টু’ও হিট। আর খানদাদারা তো আছেনই। আর আছেন রণবীর সিংহ। যাঁর কেরিয়ারে ফ্লপ মোটে একটা। ‘বেফিকরে’। ‘...রামলীলা’, ‘বাজিরাও মস্তানি’, ‘পদ্মাবত’... দুই রণবীরের প্রতিযোগিতা নিয়ে মিডিয়া চিরকালই সরগরম।

তা বলে রণবীর কপূরকে নিয়ে হেডলাইন হওয়া কিন্তু বন্ধ হয়নি। ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে সম্পর্কে ভাঙন, মাহিরা খানের সঙ্গে অ্যাফেয়ার। আর এখন আলিয়া ভট্টের সঙ্গে তাঁর প্রেম। এক জন অভিনেতা তাঁর ছবি ছা়ড়া, বাকি সব কিছুর জন্যই প্রচারে।

দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার মতো অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য রণবীরের কাছে ‘সঞ্জু’ বড় বাজি ছিল। ফাটকাটা খেলেছিলেন রণবীর। সঞ্জয় দত্তকে পর্দায় তুলে ধরা অথচ কোথাও সেটা ক্যারিকেচার মনে না হওয়ার চ্যালেঞ্জটা কিন্তু বেশ বড়। অভিনয়টা তাঁর বাঁ হাতের খেল কিন্তু বক্স অফিসের খেলা যে অন্য। ‘তমাশা’, ‘বম্বে ভেলভেট’-এ তাঁর অভিনয় যতই মুগ্ধ করুক না কেন, সুপারহিট স্ট্যাম্পটা প্রয়োজন। নয়তো অতি বড় অভিনেতারও অন্ধকারে তলিয়ে যেতে সময় লাগে না।

‘সঞ্জু’ নিয়ে দর্শকের উত্তেজনা বলে দিচ্ছে, এই ছবি বছরের অন্যতম ব্লকবাস্টার হতে যাচ্ছে। শুরুর দিনের কালেকশন ‘বাহুবলী টু’-এর (হিন্দি) থেকেও বেশি।

অতএব, চার দিকে জল্পনা বন্ধ। রাজা ফের তাঁর সিংহাসনে  সওয়ার। কিন্তু কে না জানে, সিংহাসনে সওয়ার হওয়ার চেয়েও টিকে থাকা কঠিন। এখন ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ বা ‘শামশেরা’র দিকে তাকিয়ে রণবীর।