কঙ্গনা রানাবত অভিনীত ‘মণিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি’র কাজ ছেড়ে দিলেন সোনু সুদ। ছবির একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে ছিলেন তিনি। দিন কয়েক আগেই জানা গিয়েছিল, ছবির পরিচালক কৃশ অন্য ছবির কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ায়, ছবির বাকি অংশের শুটের দায়িত্ব নিয়েছেন কঙ্গনা। বলা হচ্ছে, মহিলা পরিচালকের সঙ্গে কাজ করতে চাননি সোনু। অবশ্য ফরহা খানের নির্দেশনায় আগে কাজ করেছেন তিনি।

এক বিবৃতিতে কঙ্গনা বলেছেন, ‘‘গত বছরে শুটের পরে সোনুর সঙ্গে আমার দেখা পর্যন্ত হয়নি। ও ‘সিম্বা’র শুটিংয়ে ব্যস্ত। ফলে আমার সঙ্গে দেখা করতে চায়নি। ও নাকি মহিলা পরিচালকের সঙ্গে কাজ করতে চায় না। তবে পুরো ব্যাপারটা আমার হাস্যকর লেগেছে। সোনু আমার ভাল বন্ধু। ওর অনুরোধেই ওর প্রযোজিত ছবির গান লঞ্চের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলাম। তবে ছবির বাকিদের মতো ওর বোধ হয় আমার উপর বিশ্বাস নেই। আর আমাদের হাতে সময়ও নেই।’’

কঙ্গনা আরও বলেছেন, ‘‘যখন সোনুর সঙ্গে আমার শেষ কথা হয়েছিল, ও বলেছিল, অন্য কারও খোঁজ করতে। সেইমতো জিশান আয়ুবকে স্ক্রিপ্ট শুনিয়ে ডেট নেওয়া হয়। ইতিমধ্যে সোনু ফোন করে আবার ডেট দেয়। কিন্তু তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছিল।’’

সোনুর মুখপাত্র জানিয়েছেন, ওঁর নতুন ছবির শিডিউল ও তারিখ আগেই টিম ‘মণিকর্ণিকা’কে জানিয়েছিলেন অভিনেতা। ছবির প্রযোজক কমল জৈন আবার বলেছেন, ‘‘সোনুর কাজ ছাড়ার বিষয়টা আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’’

কঙ্গনার অভিযোগের অন্ত নেই। তাঁর দাবি, ‘‘আসলে এই ছবির জন্য চার মাস ধরে বডি বানিয়েছে সোনু। ও নিজেই কয়েকটা কুস্তির দৃশ্য লিখেছিল, যা স্ক্রিপ্টে ছিল না। ওই দৃশ্যগুলোর শুটও হয়েছিল। পরে চিত্রনাট্যকার তা বাদ দিয়ে দেন। এতে আমার দোষ কোথায়?’’ সোনুর অভিনীত দৃশ্যগুলির আবার শুট করা প্রসঙ্গে কঙ্গনা বলেছেন, ‘‘কোন অভিনেতা পিরিয়ড ছবিতে জেল দিয়ে চুল স্পাইক করেন?’’

ঝামেলা বা বিতর্কের সঙ্গে কঙ্গনার নাম সমার্থক। তিনি নিজেই জড়ান না জড়িয়ে পড়েন, তার সদুত্তর পাওয়া মুশকিল।