সাদা, লাল, গোলাপি, পিচ, হলুদ— অনেক রঙের হয় এই ফুল। আর এক বার এই গাছ করতে পারলে তা কয়েক দিনের মধ্যেই এত বেড়ে যায় যে, ঝোপ তৈরি করে ফেলে তার চার পাশে। লিলির বাল্ব কিনতে পাওয়া যায়। তা অনেকটা পেঁয়াজের মতো দেখতে হয়। সেটা মাটিতে পুঁতে দিলে পেঁয়াজ শাকের মতো ডাল বেরোতে থাকে আর তার মাথায় ফুটে ওঠে একটা একটা করে রঙিন লিলি। 

মনে রাখতে হবে

• লিলি খুব তাড়াতা়ড়ি ঝোপ তৈরি করে ফেলে। তাই একটু বড় টবে এই গাছ লাগাতে হবে।

• সূর্যালোক এই গাছের জন্য খুব দরকার। ছায়ায় এই গাছের বৃদ্ধি ভাল হবে না। তাই বাড়ির এমন জায়গায় এই গাছ রাখবেন, যেখানে দিনে অন্তত পক্ষে ৬-৭ ঘণ্টা রোদ পাবে।

• যে কোনও মাটিতেই লিলি খুব ভাল হয়। মাটিতে পচা পাতা বা আনাজের খোসা জাতীয় জৈব সার দিতে পারেন। পটাশিয়াম সমৃদ্ধ সার লিলির জন্য খুব ভাল। বাল্ব লাগানো থেকে ফুল ফোটা পর্যন্ত প্রতি দু’সপ্তাহ অন্তর এই সার দিতে পারেন লিলির টবে।

• লিলি বাল্ব পোঁতার সময়ে মাটির গোড়া ১২ ইঞ্চি পর্যন্ত খুঁচিয়ে একটু ঝুরঝুরে করে দেবেন। লিলির বাল্ব মাটির ১২ থেকে ১৫ ইঞ্চি গভীরে পুঁততে হয়। এতে বাল্ব অনেকক্ষণ পর্যন্ত ঠান্ডা থাকে।

• গাছের গোড়ায় যেন জল জমে না থাকে। টবের নীচে ফুটো করে জলনিকাশির ব্যবস্থা করতে হবে। বর্ষাকালে এই গাছের টব এমন জায়গায় রাখবেন, যাতে গাছের গোড়ায় জল না দাঁড়ায়। গাছের গোড়ায় জল জমে লিলির বাল্ব পচে গেলে পুরো গাছই মরে যেতে পারে। তবে জল রোজই দিতে হবে, যাতে মাটি শুকিয়ে না যায়।

• লিলি শুধু বাগানের সৌন্দর্যই বাড়ায় না। ঘরের রূপ খোলতাই করতে এক বা একাধিক লিলি রাখতে পারেন আপনার ঘরের ফুলদানিতে।

একটু যত্ন আর আলো-হাওয়া পেলেই লিলি রঙিন করে তুলবে আপনার মনের বাগিচা।