Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ জুন ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Regional Transport Authority: রাস্তায় বাস কত, হিসাব চাইলেন আঞ্চলিক পরিবহণ সচিব

বুধবার পাঠানো ওই চিঠিতে সচিব জানিয়েছেন, রাস্তায় পর্যাপ্ত সংখ্যায় বেসরকারি বাস-মিনিবাস নামছে না।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৯ অক্টোবর ২০২১ ০৭:৫৩
Save
Something isn't right! Please refresh.
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

Popup Close

ডিজ়েলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির ফলে সরকারি পরিবহণ নিগমের বাসের সংখ্যা কমেছে। রাজ্য ভাড়া না বাড়ানোর নীতি নিয়ে চলায় দিনদিন বাড়ছে লোকসানের বোঝাও। বেশি ভাড়া আদায় করা সত্ত্বেও খরচের ধাক্কা সামলাতে না পারায় বেসরকারি বাস কমছে হু হু করে। রাস্তায় বেরিয়ে বাস না পাওয়ায় সাধারণ যাত্রীদের হয়রানি চরমে। এই অবস্থায় কোন রুটে কত বেসরকারি বাস নামছে, তা জানতে চেয়ে বৃহস্পতিবার রিজিয়োনাল ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (আরটিএ) সচিব চিঠি দিলেন বেসরকারি বাসমালিক সংগঠনগুলিকে।

বুধবার পাঠানো ওই চিঠিতে সচিব জানিয়েছেন, রাস্তায় পর্যাপ্ত সংখ্যায় বেসরকারি বাস-মিনিবাস নামছে না। মানুষকে হয়রান হতে হচ্ছে। তাই কোন রুটে কত সংখ্যক বাস প্রতিদিন চলছে, তা জানতে চাওয়া হচ্ছে। বাসমালিক সংগঠনগুলির মধ্যে ওই চিঠি পাওয়ার পরে প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তাদের অভিযোগ, ডিজ়েলের মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষিতে বেসরকারি বাস-মিনিবাসের সমস্যার কথা সরকারকে জানানো হলেও কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য সরকারের তরফে দু’-দু’বার কমিটি গড়া হলেও সেই কমিটির সুপারিশ মানা হয়নি। আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সমতা রাখতে না পারাতেই বাসের সংখ্যা কমছে বলে অভিযোগ তাদের।

‘অল বেঙ্গল বাস মিনিবাস সমন্বয় সমিতি’র সাধারণ সম্পাদক রাহুল চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘রাস্তায় বাস যে কম চলছে, তা সকলেই বুঝতে পারছেন। কোন রুটে কত বাস চলছে, তার হিসাব সরকার জানতে চেয়েছে। সেই তথ্য জানাব। তবে বাস কেন বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সে কথাও ভাবতে হবে।’’ ‘বাস মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন’-এর সাধারণ সম্পাদক প্রদীপনারায়ণ বসু বলেন, ‘‘খরচ চালাতে না পেরে অনেক বাস বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আমরা তথ্য জানাব।’’ ‘সিটি সাবার্বান বাস সার্ভিস’-এর সাধারণ সম্পাদক টিটু সাহা বলেন, ‘‘বিপুল ক্ষতির মুখে অনেকেই বাস বিক্রি করে দিচ্ছেন।’’

Advertisement

বাসমালিক সংগঠনগুলির একাংশের ধারণা, বিভিন্ন রুটের হিসাব পাওয়ার পরে নতুন বাসমালিকদের পারমিট দিতে পারে সরকার। তবে, তাতে সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না বলেই মনে করা হচ্ছে। যদিও প্রশাসন সূত্রের খবর, বাসচালক ও মালিকদের একাংশের অসহযোগিতায় পরিস্থিতি জটিল হচ্ছে। আগে বেসরকারি বাস-মিনিবাসে বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ পেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছিল মালিকদের। এ বারও অনেকটা সেই পথে হেঁটেই পরিস্থিতি সামলানোর চেষ্টা হচ্ছে বলে খবর।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement