Advertisement
১৪ জুন ২০২৪
উচ্চ মাধ্যমিকে ছেলেরাই এগিয়ে

মেয়ের বাধা ঘরের কাজ

ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা পাশের হারে এখনও পিছিয়ে। রাজ্যের ১৮টি জেলায় যা হয়েছে, তা হয়নি নদিয়া বা মুর্শিদাবাদে। কিন্তু গত বারের চেয়ে ফল খারাপ হয়নি, বরং সামান্য ভাল বা তার আশপাশেই রয়েছে।

সামসুদ্দিন বিশ্বাস
শেষ আপডেট: ১০ জুন ২০১৮ ০১:৪২
Share: Save:

ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা পাশের হারে এখনও পিছিয়ে। রাজ্যের ১৮টি জেলায় যা হয়েছে, তা হয়নি নদিয়া বা মুর্শিদাবাদে। কিন্তু গত বারের চেয়ে ফল খারাপ হয়নি, বরং সামান্য ভাল বা তার আশপাশেই রয়েছে।

দুই জেলার মধ্যে মুর্শিদাবাদের মেয়েরা আবার পরীক্ষায় বসা থেকে শুরু করে পাশের নিরিখে নদিয়ার চেয়ে এগিয়ে। যদিও সার্বিক পাশের হারে নদিয়া এগিয়ে রয়েছে। নদিয়ায় সার্বিক পাশের হার যেখানে প্রায় ৮৫ শতাংশ, মুর্শিদাবাদে তা মোটে ৮২ শতাংশ ছুঁইছুঁই।

প্রথম দশের মেধা তালিকায় মুর্শিদাবাদের ১৭ জন ঠাঁই পেয়েছে। তার মধ্যে সাত জন মেয়ে। ৪৭৯ পেয়ে মেয়েদের মধ্যে জেলার সেরা বহরমপুরের চুয়াপুর বিদ্যানিকেতন গার্লস হাইস্কুলের অন্তরা বিশ্বাস। নদিয়ায় প্রথম দশের মেধা তালিকায় জায়গায় পেয়েছে ১৮ জন। তার মধ্যে ৫ জন মেয়ে। ৪৮২ পেয়ে জেলার সেরা ছাত্রী কল্যাণীর স্প্রিংডেল হাইস্কুলের অনুশ্রী মজুমদার।

কিন্তু রাজ্যের বেশির ভাগ জেলায় যেখানে মেয়েরা ছেলেদের পিছনে ফেলে দিয়েছে, এই দুই জেলায় তার ব্যতিক্রম হল কেন?

মুর্শিদাবাদের জেলা স্কুল পরিদর্শক (মাধ্যমিক) পূরবী বিশ্বাস দে-র মতে, “মেয়েদের পড়াশুনার সঙ্গে সংসারের কাজও করতে হয়। ফলে পাশের হারে মেয়েরা কিছুটা পিছিয়ে থাকছে বলেই আমাদের প্রাথমিক ভাবে মনে হয়েছে।” তবে আরও বিশদ বিশ্লেষণ করে পরিস্থিতি পাল্টানোর চেষ্টা হবে বলেও তিনি জানিন।

নদিয়ার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা পরিচালন কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক দিলীপ সিংহও বলছেন, “আমরা দেখেছি, শহরাঞ্চলে মেয়েদের ফল অপেক্ষাকৃত ভাল হয়েছে। গ্রামাঞ্চলে মেয়েরা পিছিয়ে আছে। তার কারণ সম্ভবত এই যে, গ্রামাঞ্চলে মেয়েদের সংসারের কাজ সামলে পড়াশোনা করতে হয়। তবে আমরা আশাবাদী, আগামী দিনে মেয়েরা পাশের হারেও এগিয়ে যাবে।”

নদিয়ার জেলা স্কুল পরিদর্শক (মাধ্যমিক) অনিন্দ্যকুমার চট্টোপাধ্যায় বলছেন, “শিগগির মহকুমা স্তরে বৈঠক করা হবে। স্কুল ধরে-ধরে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ফলের পর্যালোচনা করা হবে। আগামী বছর যাতে জেলায় ফল আরও ভাল হয়, সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ সূত্রের হিসেব বলছে, নদিয়ায় পরীক্ষার্থী ছিল ৫০,৪৭৮ জন। তার মধ্যে ৪২,৯০৩ জন পাশ করেছে। সার্বিক পাশের হার ৮৪.৯৯ শতাংশ। ২৫,৪২৩ জন ছেলের মধ্যে ২২,০২২ জন পাশ করেছে, অর্থাৎ ৮৬.৬২ শতাংশ। ২৫,০৫৫ জন মেয়ের মধ্যে ২০,৮৮১ জন পাশ করেছে, ৮৩.৩৪ শতাংশ। গত বছর সার্বিক পাশের হার ছিল ৮৪.৬০ শতাংশ। ছেলেদের পাশের হার ছিল ৮৫.৩২ শতাংশ আর মেয়েদের ৮৩.৮১ শতাংশ।

মুর্শিদাবাদে এ বার মোট পরীক্ষার্থী ছিল ৫১,৯৭৯ জন। ৪২,৫৭৮ জন পাশ করেছে, সার্বিক হার ৮১.৯১ শতাংশ। ২৩,০১৭ জন ছেলের মধ্যে ২০,০২৭ জন পাশ করেছে, অর্থাৎ ৮৭.০১ শতাংশ। ২৮,৯৬২ জন মেয়ের মধ্যে ২২,৫৫১ জন পাশ করেছে, পাশের হার ৭৭.৮৬ শতাংশ। গত বছর সার্বিক পাশের হার ছিল ৮১.৪১ শতাংশ। ছেলেদের ৮৫.৮৯ শতাংশ আর মেয়েদের ৭৭.৫৪ শতাংশ।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE