×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জুন ২০২১ ই-পেপার

উলেন-পত্নীকে কেন্দ্রীয় কাজ?

অনির্বাণ রায়
জলপাইগুড়ি ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ০৪:৩৪
তদারকি: উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে জখমদের চিকিৎসা করাতে বিজেপি সাংসদ জয়ন্ত রায়। শনিবার। ছবি: বিনোদ দাস।

তদারকি: উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে জখমদের চিকিৎসা করাতে বিজেপি সাংসদ জয়ন্ত রায়। শনিবার। ছবি: বিনোদ দাস।

মৃত বিজেপি কর্মী উলেন রায়ের বাড়িতে প্রতিনিধি পাঠিয়েও শেষ পর্যন্ত পিছু হটতে হয়েছে, দাবি তৃণমূল সূত্রে। তৃণমূল বিধায়ক খগেশ্বর রায় শুক্রবারই দলের কর্মীদের সেখানে পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু সেই প্রতিনিধিরা পৌঁছতেই বিজেপি কর্মীরা তাঁদের ঘিরে ধরেন বলে খবর। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ওই প্রতিনিধিরা পিছু হটেন।

তৃণমূলের নেতাদের দাবি, বিজেপি কর্মীরা মৃত উলেন রায়ের বাড়ি ঘিরে রেখেছে। বিজেপির দাবি, তৃণমূল যাতে কোনও ভাবে উলেন রায়ের বাড়ি গিয়ে পরিবারের কাউকে দিয়ে ‘ভুল বুঝিয়ে, জোর করে’ কোনও বিষয়ে বাধ্য না করাতে পারেন তার জন্য পাড়া-পড়শিরাই পাহারা দিচ্ছেন।

বিজেপি নেতৃত্বের একাংশের দাবি, মৃত্যুর পরে প্রায় সপ্তাহখানেক হতে চললেও পরিবার এখনও দেহ পায়নি। দেহ নিয়ে আইনি লড়াই চলছে। এই পরিস্থিতি পরিবারকে ‘সামলে’ রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ। সূত্রের খবর, মৃত বিজেপি কর্মীর স্ত্রীকে কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

Advertisement

জলপাইগুড়ির সাংসদ জয়ন্ত রায় বিষয়টি দেখভাল করছেন। সূত্রের খবর, রেল বা পিএফ দফতরে উলেন রায়ের স্ত্রীকে চাকরি দেওয়া হতে পারে। তাঁর জীবনপঞ্জিও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে পাঠানো হয়েছে বলে খবর।

তৃণমূল বিধায়কের প্রতিনিধি পাঠানো ছাড়াও পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবও সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তিনি ওই পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। প্রয়োজনে উলেন রায়ের পরিবারের তরফে যে কোনও সময়ে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

এ দিকে ওই এলাকার তৃণমূল বিধায়ক খগেশ্বর রায় বলেন, “আমি প্রতিনিধি পাঠিয়েছিলাম। তাঁদের নানা কথা বলা হয়েছে। উলেন রায়ের দেহ আসুক, অন্ত্যেষ্টি হোক। তার পর আমিও যাব, যতই অপমান করুক, আমি যাবই।”

বিজেপির জেলা সভাপতি বাপি গোস্বামী অবশ্য বলেন, “আমরা পাহারা দিচ্ছি না। এলাকার লোকেরাই পরিবারকে আগলে রাখছে। তৃণমূল নেতারা গেলে সাধারণ লোকেরাই প্রশ্ন করছেন, খুন করার পরে কেন নাটক করতে যাচ্ছেন কেন?”

উলেন রায়ের স্ত্রীকে চাকরি দেওয়া প্রসঙ্গে জেলা বিজেপি সভাপতির মন্তব্য, “উলেন রায়ের পরিবারের পাশে সব রকম ভাবে দল আছে। ওঁর পরিবারের তরফে দলকে আইনি লড়াই চালাতে বলেছে। পরিবারের সব দায়িত্ব আমাদের। কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরির বিষয়ে আমি বলার কেউ নই।”

Advertisement