×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২১ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

আন্তর্জাতিক

ইউরোপীয় এমপিদের কাশ্মীর সফরের নেপথ্যে বিতর্কিত এই ম্যাডি শর্মা কে?

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ৩০ অক্টোবর ২০১৯ ১৬:১৬
ম্যাডি শর্মা। হঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক আলোচনার শীর্ষে চলে এসেছে নামটি। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তরফে  ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রায় ৩০ জন সদস্যকে ভারতে আসার আমন্ত্রণপত্র দিয়েছিলেন  ভারতীয় বংশোদ্ভূত ম্যাডি, ওরফে মধু শর্মা।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

একটি ইংরেজি সংবাদপত্রের দাবি, আমন্ত্রণপত্রে বলা হয়, ভারতে পৌঁছলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠকের ব্যবস্থা হবে। দাবি করা হয়, এ ব্যাপারে মোদী নিজেই আগ্রহী। তিন দিনের সফরে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যদের কাশ্মীরে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানানো হয়। (ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)
Advertisement
ম্যাডির পাশাপাশি চর্চার কেন্দ্রে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘উইমেন্স ইকনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল থিঙ্কট্যাঙ্ক’ বা ‘WESTT’। অলাভজনক এই সংস্থার বয়স ছ’বছর। সংস্থাটি নথিভুক্ত করানো হয় ২০১৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

ম্যাডি-ই এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্ণধার বলে জানা গিয়েছে। তিনি নিজের পরিচয় দেন ‘আন্তর্জাতিক বিজনেস ব্রোকার’ হিসেবে। জানিয়েছেন, তিনি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা থেকে কোনও পারিশ্রমিক পান না। সর্বোপরি, সংস্থার বাজেট-ও কম রাখা হয়।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)
Advertisement
ম্যাডির অফিশিয়াল প্রোফাইল বলছে, তাঁর বর্তমান কাজের ক্ষেত্র বিস্তৃত ইউরোপ মহাদেশ, ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকা জুড়ে। বাণিজ্য ও সরকারি বিভিন্ন বিষয় তাঁর কাজের পরিধির অন্তর্ভূক্ত। (ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

নিজেকে নটিংহ্যামের ‘বাণিজ্যদূত’ এবং ইস্ট মিডল্যান্ডস-এর বিজনেস চ্যাম্পিয়ন বলে পরিচয় দেন। ইউরোপীয়ান ইকনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কমিটি বা ইইএসসি-র ওয়েবসাইটে তাঁর এই পরিচয়ই বলা হয়েছে।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

কিন্তু ইতিমধ্যেই ম্যাডি এবং তাঁর সংস্থা ঘিরে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সংস্থার দাবি, বিশ্বের ১৪ দেশে ছড়িয়ে আছে তাদের কর্মকাণ্ড। কিন্তু একটি সংবাদমাধ্যমের দাবি, এত বিস্তৃত নেটওয়ার্ক সামলানোর জন্য সংস্থার আর্থিক সঙ্গতি যথেষ্ট অপ্রতুল।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

নথি বলছে, সংস্থার মোট কর্মী মাত্র পাঁচজন। তাঁদের মধ্যে পূর্ণ সময়ের কর্মী মাত্র একজন। তাহলে তাদের এই বিস্তৃত কর্মকাণ্ড সামলানো হয় কী ভাবে? উঠছে প্রশ্ন।(ছবি: সোস্যাল মিডিয়া)

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার নথিভুক্ত নটিংহ্যামের ঠিকানায় গিয়েছিলেন ইন্ডিয়া টুডে-এর প্রতিনিধিরা। কিন্তু সেখানেও সংস্থার কোনও চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে দাবি ইন্ডিয়া টুডে-র।(ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

অসঙ্গতি রয়েছে আরও। ম্যাডির দাবি, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ওই সদস্যদের ভারতে যাতায়াত ও অন্যান্য ব্যয় বহন করেছে ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর নন অ্যালাইনড স্টাডিজ বা আইআইএনএস। কিন্তু দিল্লির সফদরজঙ্গ এনক্লেভে এই সংস্থার কার্যালয়ের নম্বরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছে ‘দ্য হিন্দু’-র তরফে। কিন্তু কাউকে পাওয়া যায়নি। সংস্থার অফিশিয়াল-ইন-চার্জ সঞ্জয় ধবনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি।(ছবি:সেশ্যাল মিডিয়া)

বিদেশ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, এই সফরের সঙ্গে ওই দফতর জড়িত নয়। তারা এই সফর সংগঠিতও করছে না। যদিও আগত সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। (ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

প্রতিনিধি দলের সদস্য বাছাই ও তাঁদের আমন্ত্রণ জানানোর শর্ত নিয়ে গোড়া থেকেই অস্বস্তি দেখা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্যতম কেন্দ্র ব্রাসেলসে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন সূত্রে খবর, এই দলের ২৩ জন সদস্যের প্রত্যেকেই গোঁড়া দক্ষিণপন্থী দলের প্রতিনিধি। তাঁদের অনেকেই আবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের ধারণারই বিরোধী। (ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া)

ফলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতাদের অনেকেই বিষয়টি নিয়ে খুশি নন। আগেই বিবৃতি দিয়ে এই সফর থেকে দূরত্ব বাড়িয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। তারা জানিয়েছে, নিতান্তই ‘ব্যক্তিগত’ সফরে গিয়েছেন পার্লামেন্টের ওই সদস্যেরা। (ছবি:সোশ্যাল মিডিয়া)

এই অসঙ্গতিপূর্ণ পরিস্থিতিতে কী ভাবে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার মাধ্যমে এই ধরনের সফরের ব্যবস্থা করা হল, তা নিয়ে বিভিন্ন স্তরে প্রশ্ন উঠেছে। (ছবি : সোশ্যাল মিডিয়া)