নির্দিষ্ট সময় ডিউটির পরেও যাঁরা কাজ করেছিলেন, তাঁদের ওভার-টাইম পাওয়ার কথা। পেয়েওছিলেন। ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত— আড়াই বছরে কারও খাতায় জমা পড়েছে ২০ হাজার টাকা, কারও আবার সাড়ে সাত লক্ষ টাকাও। আচমকাই এয়ার ইন্ডিয়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, সেই টাকা বেতন থেকে কেটে নেওয়া হবে!

কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থাটির পাইলটেরা। তাদের সংগঠন ইন্ডিয়ান কমার্শিয়াল পাইলট অ্যাসোসিয়েশন প্রতিবাদ জানিয়ে এয়ার ইন্ডিয়ার সিএমডি প্রদীপ সিংহ খারোলাকে চিঠি দিয়েছে। সংগঠনের অভিযোগ, তাদের সঙ্গে কথা না বলেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। এক পাইলটের কথায়, ‘‘এখন কারও বেতন থেকে পাঁচ লক্ষ বা সাত লক্ষ টাকা কেটে নিলে, তাঁর কী অবস্থা হবে তা সহজেই অনুমেয়।’’

মরিয়া হয়ে খরচ কমানোর চেষ্টা করছে লোকসানে চলা এয়ার ইন্ডিয়া। এর মধ্যে মূলধন জোগাতে কেন্দ্র আবার ২,০০০ কোটি টাকার অনুদান ঘোষণা করেছে। জুনের পর থেকেই কর্মীদের ওভারটাইম বন্ধ করেছে সংস্থা। তা বন্ধ হয়েছে পাইলটদের ক্ষেত্রেও। তাঁদের অভিযোগ, ২০১৬ সালে বিমান মন্ত্রকই জানিয়েছিল পাইলটদের ক্ষেত্রে ওই আড়াই বছর ওভারটাইম দিতে হবে। পাইলটদের দাবি, সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ বেআইনি ও সংস্থা তা থেকে না সরলে তাঁরাও কঠোর সিদ্ধান্ত নেবেন।