পাঁচ বছরের মেয়েকে টোটোয় বসিয়ে রেখে নেমে গিয়েছিলেন বাবা। টোটোয় লাগানো ছিল চাবিও। কিন্তু, মেয়ে চাবি ঘুরিয়ে চাপ দেয় অ্যাকসিলারেটরে। হুড়মুড়িয়ে এগিয়ে যায় টোটো। নিয়ন্ত্রণহীন সেই টোটোই পিষে দিল আড়াই বছরের আয়ুষ রায়চৌধুরীকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার।

মঙ্গলবার এই দুর্ঘটনা ঘটেছে নিউটাউনে। এ দিন সকালে নিউটাউনের একটি আবাসনে যাত্রীদের নামিয়ে দিতে গিয়েছিলেন টোটোচালক অজয় রায়। ফেরার পথে বাজার করবেন ভেবে সঙ্গে নিয়েছিলেন মেয়ে পিয়াকে। যাত্রীদের নামিয়ে, চাবি গাড়িতে রেখেই শাকসব্জি কিনতে চলে যান অজয়। সে সময় গাড়িতে বসেছিল পিয়া। বাবা নেমে যেতেই গাড়ির চাবি ঘুরিয়ে অ্যাকসিলারেটরে চাপ দিয়ে ফেলে সে। আচমকাই টোটো ছুটতে শুরু করে। কিছুটা এগিয়ে গিয়েই একটি সাইকেলে ধাক্কা মেরে উল্টে যায় গাড়িটি।

পাশেই আড়াই বছরের ছেলেকে নিয়ে বাজার করছিলেন এক মহিলা। নিয়ন্ত্রণহীন টোটোটি উল্টে গিয়ে ওই শিশুটিকে পিষে দেয়। মাথায় গুরুতর আঘাত পায় সে। তড়িঘড়ি তাকে নিউটাউনের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, শিশুটিকে শেষ পর্যন্ত বাঁচানো যায়নি। হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন: সারা দেশে এনআরসি হবে, ঘোষণা অমিতের, বাংলায় হতে দেব না, পাল্টা মমতার

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সামনে থাকা একটি সাইকেলে ধাক্কা মেরে টোটো উল্টে বাচ্চাটিকে পিষে দেয়। এমন দুর্ঘটনার জন্য টোটোচালককেই দায়ী করছেন তাঁরা। তাঁদের দাবি, টোটোচালকের গাফিলতিতেই দুর্ঘটনা ঘটেছে। গাড়ির চাবি খুলে নিয়ে তবেই তাঁর নামা উচিত ছিল বলেই মত তাঁদের।

আরও পড়ুন: আড়াই বছর করে সেনা-এনসিপির মুখ্যমন্ত্রী, জোটে ‘হ্যাঁ’ সনিয়ার, মহারাষ্ট্রে সরকার গঠন নিশ্চিত?

নিউটাউন থানার পুলিশ টোটোচালক অজয় রায়কে (৪১) গ্রেফতার করেছে। তার বিরুদ্ধে বেপরোয়া গাড়ি চালানো, অবহেলায় মৃত্যু-সহ নানা ধারায়  মামলা রুজু করা হয়েছে। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে টোটোটিও।