রাতের শহরে নিরাপত্তা দিতে পথে পর্যাপ্ত পুলিশকর্মী থাকেন না। এ কথা স্বীকার করে নিচ্ছেন খোদ কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। পাশাপাশি, প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়াকে হেনস্থার ঘটনায় পুলিশি নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ওঠা অভিযোগে তিনি যে বিব্রত, সে বার্তা বুধবার রাতে আধিকারিকদের দিয়েছেন সিপি। রাতের শহরে নিরাপত্তা বাড়াতে সব থানার ওসি-দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত সোমবার রাতে শহরের দু’জায়গায় (এক্সাইড মোড় এবং প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড) একদল বাইক আরোহীর হাতে লাঞ্ছিত হন প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়া-ইউনিভার্স ঊষসী সেনগুপ্ত। মঙ্গলবার দুপুরে ফেসবুক পোস্টে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ আনেন তিনি। এর পরেই নড়ে বসেন পুলিশকর্তারা। অভিযোগ ওঠে, প্রথমে ময়দান থানা এবং পরে চারু মার্কেট থানার দুই অফিসার ঘটনাটি নিজেদের এলাকার নয় বলে অভিযোগ নিতে অস্বীকার করেন। পরে চারু মার্কেট থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। গ্রেফতার হয় সাত অভিযুক্ত। বুধবার তাদের আদালত পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেয়। তদন্তে লালবাজার জানতে পারে, ওই রাতে এলাকা কার অধীন তা না ভেবে অফিসারেরা তৎপর হলে দ্বিতীয় হাঙ্গামা এড়ানো যেত। তা ছাড়া তিনটি থানা রাতেই ঘটনাটি জানলেও লালবাজার কন্ট্রোলে জানায়নি।

সিপি তাঁর বার্তায় ওসি-দের বলেছেন, লোকসভা ভোটের সময়ে যে ভাবে রাস্তায় নাকা চেকিং হচ্ছিল, তা ফিরিয়ে আনতে হবে। রাতে কী ভাবে বাহিনীর সদস্যদের রাস্তায় মোতায়েন করা হবে, তা নিয়ে ওসি-দের ভাবতে বলেছেন। বিভিন্ন থানার পুলিশকর্মীদের জন্য ‘স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিয়োর’ (এসওপি) চালু করল লালবাজার। বুধবার ওই বিজ্ঞপ্তি শহরের সব থানায় পৌঁছেছে। ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, অভিযোগকারীর সঙ্গে নম্র ব্যবহার করতে হবে, তাঁর পুরো বক্তব্য শুনতে হবে, থানার সীমানা নিয়ে সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে তা সংশ্লিষ্ট ওসি, ডিভিশনাল অফিস এবং লালবাজার কন্ট্রোল রুমে জানাতে হবে। অভিযোগকারী মহিলা, অপ্রাপ্তবয়স্ক বা তৃতীয় লিঙ্গের হলে তাঁদের সুরক্ষিত ভাবে গন্তব্যে পৌঁছনো নিশ্চিত করতে হবে। হেলমেট ছাড়া বেপরোয়া বাইকচালকদের বিরুদ্ধে কঠোর হতে বলা হয়েছে। 

পুলিশের একটি সূত্রের খবর, সিপি-র ওই নির্দেশের পরেই ডিসি-রা বিভিন্ন থানার আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করে রাতের নিরাপত্তা নিয়ে নতুন পরিকল্পনা করেছেন। রাতের পথে যাতে বেশি পুলিশকর্মী থাকেন, তা নিয়ে ওসি-রাও অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। 

দ্বিতীয় দফায় কলকাতার সিপি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরেই এন আর এসে রাতে চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনা ঘটে। সেখানে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে কর্মবিরতি শুরু করেন জুনিয়র ডাক্তারেরা। গঙ্গায় ডুবে জাদুকরের মৃত্যুতেও পুলিশের নজরদারি নিয়ে অভিযোগ ওঠে। ফের রাতের শহরে প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়ার হেনস্থার ঘটনা ঘটে। তাই কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগে চারু মার্কেট থানা ও ভবানীপুর থানার দুই এসআই ও ময়দান থানার এএসআই-কে শোকজ করে বাহিনীর সদস্যদের কড়া বার্তা দিচ্ছেন সিপি, এমনই মনে করছেন পুলিশকর্তারা।