শহরের উত্তর থেকে দক্ষিণে প্রায় ২৫.১৩৫ কিলোমিটার জুড়ে ছড়িয়ে আছে কলকাতা মেট্রো রেলওয়ে। ভূগর্ভস্থ, ভূতলস্থ এবং উড়াল— এই তিন ধরনের ট্র্যাককে এক করে মোট ২৪টি মেট্রো রয়েছে কলকাতায়। এই বছর জানুয়ারিতে কলকাতা মেট্রো কর্তৃপক্ষ নারী সুরক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে আরও শক্তিশালী করতে এক বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করেছেন। এই টাস্ক ফোর্সের বেশির ভাগই মহিলা সদস্য। কার্যনির্বাহী ওই দলের সদস্যেরা যে সব সময় উর্দি পরে থাকেন তেমন নয়, ৩-৪ জন সব সময় সাদা পোশাকেই মেট্রো এবং স্টেশন চত্বরে টহল দেন।

 এই বিশেষ দলের মহিলারা শক্তিশালী এবং আত্মবিশ্বাসী। বিনা উর্দিতে থাকায় অন্যায়কারী বুঝতেই পারে না যে, পুলিশ ফোর্সের সামনেই সে অন্যায় করছে। এ ভাবেই এই বিশেষ কার্যনির্বাহী দল দোষীকে শনাক্ত করে হাতেনাতে পাকড়াও করেছে। কলকাতার মানুষও এখন এই টাস্ক ফোর্সের গতিবিধি সম্পর্কে যথেষ্টই সচেতন। টহলদারি এই বাহিনীর সহায়তায় কলকাতা মেট্রো সংলগ্ন এলাকায় মহিলাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা এখন যথেষ্টই জোরদার।

১৯৮৪ সাল থেকে কলকাতা মেট্রো শহর ও শহরতলির জনজীবনকে সহজতর করে তুলেছে। সেই সময় থেকেই ‘সিটি অব জয়’-এর এই বিশেষ লাইফলাইন তার নাগরিকের সেবায় নিয়োজিত। মেট্রো না থাকলে হয়তো কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী দুই ২৪ পরগনার মানুষকে বাড়ি আর অফিসের থেকে বেশি ট্রাফিক জ্যামেই  আটকে পড়ে থাকতে হত।


সবিস্তার দেখতে ক্লিক করুন

এ বার কলকাতা মেট্রো কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকটি নতুন প্রকল্প নিয়ে হাজির। প্রজেক্টগুলোর বেশির ভাগই মেট্রোর লাইন সম্প্রসারণ সংক্রান্ত। লাইন সম্প্রসারণের মধ্যে দিয়ে কলকাতাকে সমস্ত দিক থেকে সংযুক্ত রেখে, সড়ক পরিবহণ ব্যবস্থার হয়রানিকে দূর করার এ এক অন্যতম প্রয়াস। বেশ কিছু দিনের জন্য স্তব্ধ থাকলেও দ্রুত গতিতে চলছে সেই সম্প্রসারণের কাজ।

যে ছয়টি প্রজেক্টের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে—

সল্টলেক সিটি–হাওড়া ময়দান (ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো করিডর)

• জোকা–বিবাদী বাগ

• বরাহনগর–ব্যারাকপুর

• নোয়াপাড়া–দক্ষিণেশ্বর

• নিউ গড়িয়া–বিমানবন্দর

• লাইন ১-এর প্রসারণ

• দমদম–দক্ষিণেশ্বর ভায়া নোয়াপাড়া

মেট্রো লাইনের এই সম্প্রসারণের ফলে রিয়্যাল এস্টেটের উন্নতির এক নতুন দিক খুলে গিয়েছে। বিশেষ করে লাইন ৩-এর (জোকা-এসপ্ল্যানেড মেট্রো) আশপাশের অঞ্চলগুলোতে বহু মানুষ তাঁদের আস্তানা তৈরি করছেন। জোকা থেকে এসপ্ল্যানেড অবধি ১৬.৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রো লাইনের কাজ অনেক দিন আগেই শুরু হয়েছে। এই প্রজেক্টটি তৈরি করছে আর.ভি.এন.এল নামক একটি সংস্থা এবং টেন্ডার পেয়েছে সিমপ্লেক্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার। খুব দ্রুত গতিতে কাজ চলার কারণে দূর থেকে কলকাতায় আগত বহু মানুষের আগ্রহ এখন জোকা এবং তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চল।

DTC SouthernHeights - Next Level Living

ডিটিসি সাউদার্ন হাইটসের টাউনশিপ লেভেল প্রজেক্ট এই মুহূর্তে সর্বাপেক্ষা আলোচিত এবং চর্চিত বিষয়। জোকা মেট্রো স্টেশন থেকে ২৫০ মিটার দূরে ১৩০০টি বাড়ি নির্মানের মধ্যে দিয়ে নতুন শহর গড়ে তোলার পদক্ষেপই হল ডিটিসি সাউদার্ন হাইটসের টাউনশিপ প্রজেক্ট। পুরোদমে চলছে কনস্ট্রাকশনের কাজ। স্কোয়্যার ফিট প্রতি মাত্র ২৯৯০-৩২৫০ টাকা দাম হওয়ায় প্রচুর মানুষ তাঁদের নতুন বসত বাড়ি কেনার জন্য আগ্রহও দেখাচ্ছেন।

 

এই রুটের স্টেশনগুলি—

• জোকা ২.০০ কিলোমিটার

• ঠাকুরপুকুর ৩.৪৫৫ কিলোমিটার

• সখেরবাজার ৪.৬৭ কিলোমিটার

• বেহালা চৌরাস্তা ৬.১৩ কিলোমিটার

• বেহালা বাজার ৭.৪৬০ কিলোমিটার

• তারাতলা ৮.৫০ কিলোমিটার

• মাঝেরহাট ৯.৭৪ কিলোমিটার

• মোমিনপুর ১০.৭৫৫ কিলোমিটার

• খিদিরপুর ১১.৮৭ কিলোমিটার

• ভিক্টোরিয়া ১৪.০২৫ কিলোমিটার

• পার্কষ্ট্রিট ১৫.২৯ কিলোমিটার

• ধর্মতলা ১৬.২১৫ কিলোমিটার

তবে এখানে প্রস্তাবিত এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশনটি এবং বর্তমান এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশনটি এক নয়। সম্পূর্ণ একটা নতুন এসপ্ল্যানেড স্টেশন তৈরি হবে যা লাইন ২-এ যুক্ত থাকবে। পার্ক স্ট্রিট হতে চলেছে লাইন ৩  এবং লাইন ১-এর মেট্রো অদলবদল করার সংযোগস্থল।