এক বাস মালিকের কাছে মোটা টাকা চেয়ে ফোন এসেছিল। কিন্তু, সেই টাকা না দেওয়ায় ওই ব্যবসায়ীকে মারধর করা হয়। শুধু তাই নয়, যে রুটে ওই ভদ্রলোকের বাস চলে তারই একটি বাসস্ট্যান্ডে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় এক দল দুষ্কৃতী। জেলের ভিতর থেকে যে কুখ্যাত তোলাবাজ ওই ফোনটি করেছিল, তারই শাগরেদরা ওই কাণ্ড ঘটায় বলে অভিযোগ। লেকটাউন থানার দমদম পার্ক এলাকার ওই ঘটনায় পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন অসীম গুহ নামে এক বাস মালিক।

১২সি রুটে লেকটাউন এলাকার বাসিন্দা অসীম গুহর একটি বাস চলে। তাঁর অভিযোগ, গত ২৩ অগস্ট তাঁর কাছে একটি ফোন আসে। উল্টো পাশের ব্যক্তিটি নিজেকে ‘গেঁদু’ পরিচয় দিয়ে কয়েক লাখ টাকা দাবি করে।

অসীমবাবু জানান, প্রথমে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেননি তিনি। পরের দিন গেঁদুর ভাই গৌরাঙ্গ বড়াল দমদম পার্কের ১২সি বাসস্ট্যান্ডে এসে তাঁর কাছে টাকা চান। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করায় তখনকার মতো ফিরে যান গৌরাঙ্গ।

আরও পড়ুন: অনিয়মের হাম্পে বাড়ছে বিপদ

কিন্তু রবিবার ফের ১০-১৫ জন দুষ্কৃতী সহ দলবল নিয়ে ওই বাস স্ট্যান্ডে চড়াও হন গৌরাঙ্গ। বাস মালিকদের ইউনিয়ন অফিসে তাণ্ডব চালানোর পাশাপাশি কয়েকটি বাসেও ভাঙচুর চালায় ওই দুষ্কৃতী দল। অসীমবাবু ছাড়াও আরও কয়েক জন বাস মালিককে মারধর করে খুনের হুমকি দিয়ে যায়। রবিবার রাতেই লেক টাউন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন অসীমবাবু।

আরও পড়ুন: রোগীর মৃত্যুতে ধুন্ধুমার এনআরএসে

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গেঁদু ওই এলাকার কুখ্যাত তোলাবাজ। খুন, অপহরণ, তোলাবাজি-সহ একাধিক ধারায় অভিযুক্ত গেঁদু বর্তমানে প্রেসিডেন্সি জেলে বন্দি। গেঁদু তিন লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছে বলে গত মাসেই দমদম পার্ক এলাকার আরও এক ব্যক্তি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। জেলে বসেও দিন পর দিন কী ভাবে ওই দুষ্কৃতী তোলাবাজি চালিয়ে যেতে পারে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন এলাকাবাসী।

অভিযোগ পাওয়ার পর গৌরাঙ্গ বড়ালকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, পুরো বিষয়টাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

(কলকাতা শহরের রোজকার ঘটনার বাছাই করা বাংলা খবর পড়তে চোখ রাখুন আমাদের কলকাতা বিভাগে।)