আদালতের নির্দেশে এ বার ছটপুজো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে রবীন্দ্র সরোবরে। পরিবর্তে অন্য কোথাও তা করতে ইতিমধ্যেই দফায় দফায় বৈঠক করেছে কেএমডিএ। দফতরের মন্ত্রী তথা মেয়র ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গেও শুক্র ও শনিবার বৈঠক করেছেন কেএমডিএ-র কর্তারা। নগরোন্নয়ন দফতর সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই তিনটি জলাশয় চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলি হল, তারাতলার কাছে নেচার পার্ক এবং বাইপাস ও পাটুলিতে আরও দু’টি বড় জলাশয়। রবীন্দ্র সরোবরে যাঁরা পুজো দিতে যেতেন, তাঁদের কথা ভেবে শহরে আরও কয়েকটি জলাশয় খোঁজার কাজ চলছে।

কেএমডিএ-র এক আধিকারিক জানান, রবীন্দ্র সরোবর এলাকার আশপাশে যে সমস্ত জলাশয় রয়েছে, সেগুলির উপরেই বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে। কারণ সরোবরে যাঁরা আসতেন, তাঁরা ওই এলাকার জলাশয়গুলিতে যেতেই পছন্দ করবেন। কেএমডিএ কর্তৃপক্ষ জানান, কলকাতা পুরসভার ১০ নম্বর বরো এলাকার প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড এবং গল্ফগ্রিনে যে সমস্ত জলাশয় রয়েছে, সেগুলিকেও চিহ্নিত করে ঘাট তৈরি করা হবে। আপাতত পোদ্দারনগর, বিজয়গড়, যাদবপুর, যোধপুর পার্ক ও লায়েলকা এলাকার কয়েকটি জলাশয় তাঁরা চিহ্নিত করেছেন। তবে কোন কোন জলাশয় পুজোর জন্য ব্যবহার করা যাবে, তা নিয়ে আগামী বুধবার পুর ভবনে বৈঠক হবে। কেএমডিএ, কলকাতা পুরসভা ও কলকাতা পুলিশের কর্তারা বৈঠকে হাজির থাকবেন বলে জানা গিয়েছে।