রবীন্দ্র সরোবরে বাতাসের দূষণ কত, তা মাপতে এ বার বসবে নতুন যন্ত্র। কেএমডিএ-র এক আধিকারিক জানান, পরিবেশ আদালতের নির্দেশ মেনেই এই যন্ত্র বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সরোবর চত্বরে ওই যন্ত্র বসানোর দায়িত্বে রয়েছে রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ।

সরোবর ও সংলগ্ন এলাকায় প্রতিদিন বায়ুদূষণের পরিমাণ ঠিক কত, তার কোনও হিসেব নেই কেএমডিএ কর্তৃপক্ষের কাছে। অথচ রবীন্দ্র সরোবর সংলগ্ন রাস্তায় প্রতিদিন প্রচুর গাড়ি চলাচল করে। ফলে বায়ুদূষণের পরিমাণও বেশি হবে, এটাই স্বাভাবিক। এ বার তাই সেখানেই বায়ুদূষণের পরিমাণ জানতে এই যন্ত্র বসানোর জন্য রবীন্দ্র সরোবর চত্বরে পরিবেশ দফতরকে জমি দিয়েছে কেএমডিএ। 

কেএমডিএ কর্তৃপক্ষ জানান, সরোবরের মত জায়গায় বাতাসে ধূলিকণার কতটা, তা নিয়ে পরিবেশকর্মীদের একাংশ প্রশ্ন তোলেন। এমনকি, ওই এলাকা দূষণমুক্ত রাখতে পরিবেশ আদালতেও এ নিয়ে আলোচনা করা হয়। কিন্তু দূষণ সংক্রান্ত কোনও তথ্য না থাকায় এই ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আদালতকে নির্দিষ্ট ভাবে কিছু জানাতে পারেননি।