• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফেসবুকে ‘আত্মপ্রচার’, ব্যঙ্গবিদ্রুপে বিদ্ধ মেট্রো

Poster
ফেসবুকে মেট্রো কর্তৃপক্ষের এই পোস্ট ঘিরেই শুরু বিতর্ক।

মেট্রোর কাছে কতটা ঋণী নিত্যযাত্রীরা, তা বোঝাতে মেট্রোহীন দিনের কথা মনে করিয়ে দিতে চেয়েছিলেন কর্তৃপক্ষ। তাই নিজেদের ফেসবুক পেজে বাসের বাদুড়ঝোলা ভিড়ের ছবি পোস্ট করা হয়েছিল মেট্রোর তরফে। সোমবার সন্ধ্যায় ওই পোস্ট মেট্রোর ফেসবুক পেজে প্রকাশিত হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ক্ষোভ আর সমালোচনার ঝড় কমেন্টের আকারে আছড়ে পড়ল সেই পেজে। ভাবমূর্তি উদ্ধারের চেষ্টা করতে গিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত ট্রোলড হতে হল মেট্রোকে। প্রায় শ'খানেক কমেন্টের বেশির ভাগই পড়ল মেট্রো পরিষেবার বেহাল দশা নিয়েই। 

মেট্রো ছাড়া জীবনের করুণ অবস্থার কথা মনে করিয়ে দিতে চাওয়া ওই পোস্টের বিরোধিতা করে সৈকত সমাদ্দার নামে এক যাত্রী লেখেন, ‘‘যা সুন্দর মেট্রো পরিষেবা পাচ্ছি, তাতে কিছু দিন পরে আপনারা ভেবে দেখুন যাত্রী ছাড়া মেট্রোর কী দশা হয়।" 

এস দাস নামে এক যাত্রী লেখেন, ‘‘অন্য পরিবহণকে এ ভাবে হেয় না করাই ভাল। যখন সুড়ঙ্গে মেট্রো থমকে যায় তখন শহরের মানুষের কাছে বাসই এক মাত্র অবলম্বন। যাত্রী সুরক্ষায় বাড়তি গুরুত্ব দিন।" 

সৌম্য গঙ্গোপাধ্যায় নামে এক যাত্রী লেখেন, ‘‘সন্ধ্যে ৬টা থেকে সাড়ে ৭টার মধ্যে এক দিন মেট্রোর ছবি তুলে দেখুন। বাসের অবস্থাই দেখতে 

পাবেন মেট্রোয়।’’ শান্তনু ঘোষ নামে এক মেট্রো যাত্রী লেখেন, ‘‘হ্যাঁ, বাসে বাদুড়ঝোলা ভিড় হয় আর অফিসের সময়ে মেট্রোয় ফুটবল খেলা যায়।’’ কৌশিক গোস্বামী নামে এক মেট্রো যাত্রী লেখেন, ‘‘মেট্রো কর্তৃপক্ষ ভিতরে ছবি তোলার অনুমতি দিলে তা বাসের থেকেও ভয়াবহ হত।’’ 

নড়বড়ে পরিষেবা নিয়েও মেট্রো কর্তৃপক্ষের এ ভাবে গলা ফাটানোকে বিদ্রুপ করে সৌরশেখর রায় নামে এক যাত্রী তাঁর মন্তব্যে লেখেন, ‘‘কলকাতা মেট্রো পৃথিবীর মধ্যে এক নম্বর। লন্ডন মেট্রো ২ নম্বর। খুশি তো ?"

বাদুড়ঝোলা বাসের ছবি দিয়ে এ ভাবে প্রচার করায় ফেসবুকেই ক্ষোভ উগরে দেন জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি লেখেন, ‘‘বাস গণ পরিবহণ। রাজ্য জুড়ে বাসের কোনও বিকল্প নেই। দিনরাত পরিষেবা পাওয়া যায় বলেই মানুষ বাসের উপর 

নির্ভর করেন।’’

তাঁকে সমর্থনও করেন দু’-এক জন। কোনও কোনও যাত্রীর অভিযোগ রাত হলে মেট্রো পাওয়া যায় না। নির্ভর করতে হয় সেই বাসের উপরেই। ন্যূনতম রাত ১১টা পর্যন্ত মেট্রো পরিষেবা চালু রাখার আর্জি জানান এক যাত্রী। 

তবে সকলেই যে সমালোচনা করেছেন, তা-ও নয়। গত রবিবার ইডেনে আইপিএলের ম্যাচের দিন সন্ধ্যার দিকে বাড়তি মেট্রো চালানোর সিদ্ধান্তের প্রশংসাও করেছেন কেউ কেউ। মেট্রো কর্তৃপক্ষ অবশ্য বিতর্কিত ফেসবুক পোস্টের কোনও জবাব দেননি। নতুন পোস্টে আর সমালোচনায় না জড়িয়ে আইপিএলের সময়ে নিজেদের পরিষেবার 

কথা বলেছেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন