• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কুড়ি মিনিটের শোভাযাত্রায় মন ভরল না দর্শকদের

Procession
শক্তি: প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে সেনাবাহিনীর ট্যাঙ্ক। রবিবার, রেড রোডে। ছবি: সুদীপ্ত ভৌমিক

মেরেকেটে মিনিট বিশেক। তার মধ্যেই শেষ হয়ে গেল রেড রোডে প্রজাতন্ত্র দিবসের ‘বর্ণাঢ্য’ শোভাযাত্রা। এ দিনের ওই শোভাযাত্রায় সেনা, বায়ুসেনা ও নৌবাহিনীর পাশাপাশি রাজ্যের নানা বাহিনী ও এনসিসি-র শিক্ষার্থীরাও ছিলেন। কুচকাওয়াজে বিশেষ ভাবে নজর কেড়েছেন কারা বিভাগের মহিলা কর্মীরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাব্যক্তিরা।

রবিবার সকাল থেকেই রেড রোডে জড়ো হয়েছিলেন প্রচুর মানুষ। ছিল পুলিশি কড়াকড়িও। প্রথমে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি কিছুটা দূরে গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে অনুষ্ঠান মঞ্চের দিকে এগোন। তার পরে গাড়িতে চেপে আসেন রাজ্যপাল। তিনি জনতার উদ্দেশে হাতও নাড়েন। রাজ্যপাল ও রাজ্য প্রশাসনের মধ্যে গত কয়েক মাসে বিভিন্ন বিষয়ে মতানৈক্য তৈরি হয়েছে। তবে এ দিন সাংবিধানিক অনুষ্ঠানের মঞ্চে সে সব কোনও প্রভাব ফেলেনি।

কুচকাওয়াজে সেনার প্যারা-কম্যান্ডো বাহিনী ছিল। সেই সঙ্গে ছিল সাঁজোয়া বাহিনীর বিভিন্ন সরঞ্জামও। নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘আইএনএস কলকাতা’র একটি মডেলও আনা হয়েছিল। বায়ুসেনারও বিভিন্ন মডেল ছিল। তারই পিছু পিছু আসেন কলকাতা ট্র্যাফিক পুলিশের কর্মীরা। কারা বিভাগের কুচকাওয়াজে মহিলাদের একটি বড় দল ছিল। বিশেষ ভাবে নজর কেড়েছেন এনসিসি-র মহিলা শিক্ষার্থীরাও। 

আরও পড়ুন: দু’মাসের মেয়েকে মেরে ম্যানহোলে, গ্রেফতার মহিলা

তবে এ দিন কুচকাওয়াজ দেখতে আসা দর্শকদের অনেকেই অনুষ্ঠান আর একটু দীর্ঘ না হওয়ায় হতাশ হয়েছেন। তাঁদের কারও কারও বক্তব্য, আগে দীর্ঘক্ষণ ধরে কুচকাওয়াজ হত। বিভিন্ন সরকারি দফতরের ট্যাবলো থাকত। এ দিনও অবশ্য বিভিন্ন দফতরের ট্যাবলো ও ছৌ নাচ ছিল। কিন্তু তার ঔজ্জ্বল্য অনেকেরই মন কাড়তে পারেনি। 

রেড রোডের পাশাপাশি শহর ও শহরতলির বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানেও এ দিন প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয়েছে। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন