পর্যাপ্ত টাকা বরাদ্দ হয়েছে কেন্দ্রীয় বাজেট প্রস্তাবে। এ বার যদি সময়ে প্রকল্প শেষ না করা যায়, তাতে মুখ পুড়বে রাজ্যেরই। জট কাটিয়ে কত দ্রুত কলকাতা ও সংলগ্ন মেট্রো প্রকল্পগুলি শেষ করা যায়, তা নিয়ে আজ, মঙ্গলবার নবান্নে রাজ্যের পরিবহণ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন মুখ্যসচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে থাকছেন মেট্রো রেলের উচ্চপদস্থ কর্তারা।

গত ১ ফেব্রুয়ারি অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি যে বাজেট প্রস্তাব পেশ করেছেন, তাতে একমাত্র ইস্ট-ওয়েস্ট ছাড়া বাকি সব মেট্রো প্রকল্পেই অর্থ বরাদ্দ বেড়েছে। মেট্রো কর্তারা জানাচ্ছেন, বিমানবন্দর-নিউ গড়িয়া এবং জোকা-বিবাদী বাগ প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ হয়েছে যথাক্রমে ২৫ এবং ৫০ কোটি টাকা। কবি সুভাষ-দমদম মেট্রো প্রকল্প সম্প্রসারণ, নোয়াপাড়া-বারাসত, বরাহনগর-দক্ষিণেশ্বর প্রকল্পের জন্যও যথাক্রমে ৩০, ২২ এবং ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। এমনকী, রাজ্যের প্রস্তাব মেনে সেন্ট্রাল পার্ক থেকে হলদিরাম মেট্রো প্রকল্পের জন্যও অল্প কিছু অর্থ বরাদ্দ হয়েছে বাজেট প্রস্তাবে। মেট্রো কর্তাদের আশা, বরাদ্দ অনেক বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্পের কাজ শেষ করতে আর কোনও অসুবিধা হবে না। তাই রাজ্য সরকার নিশ্চয়ই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবে।

তবে অর্থ বরাদ্দ হলেও এখনও বেশ কিছু ক্ষেত্রে জমি জট এবং অন্য আরও কিছু সমস্যায় মেট্রো প্রকল্পগুলির কাজ আটকে রয়েছে। কিন্তু নবান্নও এ বার দ্রুততার সঙ্গে ওই সব জট কাটিয়ে প্রকল্পগুলির কাজ দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়। সে কারণেই মঙ্গলবারের বৈঠকটির উপরে বাড়তি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বলে রাজ্য পরিবহণ দফতর সূত্রের খবর। ইস্ট-ওয়েস্ট বাদ গেল কেন? এক মেট্রোকর্তার বক্তব্য, ‘‘ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর দ্বিতীয় ধাপের কাজ নিয়ে এখনও কেন্দ্র তেমন আশাবাদী নয় বলেই বাড়তি অর্থ বরাদ্দ হয়নি।’’