বৃষ্টির জেরে বহু রাস্তা জলমগ্ন। বিপর্যস্ত ট্রাফিক ব্যবস্থা। জল থই থই রাস্তা আর শম্বুকগতির যানবাহনে নাভিশ্বাস উঠছে মহানগরের। অধিকাংশ লোকাল ও এক্সপ্রেস ট্রেন দেরিতে চলছে। রানওয়েতে জল দাঁড়িয়ে যাওয়ায় দমদম বিমানবন্দর থেকে দেরি হচ্ছে বিমান চলাচলেও। সকাল ১০টা নাগাদ মিনিট পনেরোর জন্য বিমানের ওঠানামা বন্ধ ছিল সেখানে। তবে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

রাতভর বৃষ্টিতে মহানগরের সব অংশেই নীচু জায়গাগুলিতে জল জমে গিয়েছে। উত্তর কলকাতার শ্যামবাজার, মানিকতলা, আমহার্স্ট স্ট্রিট, সুকিয়া স্ট্রিট, পাতিপুকুর আন্ডারপাস, উল্টোডাঙা আন্ডারপাস, মধ্য কলকাতার সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি, কলেজ স্ট্রিট, দক্ষিণে পার্ক সার্কাস সেভেন পয়েন্ট, বালিগঞ্জ, রাসবিহারির মতো এলাকায় রাস্তায় জল দাঁড়িয়ে পড়েছে। ফলে যান চলাচলের গতি অত্যন্ত ধীর।

কলকাতার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের আপাতত আকাশের উপরেই ভরসা। বৃষ্টি না কমলে এই জলমগ্ন অবস্থা থেকে রেহাই মিলবে না। তবে কর্তব্যরত এক অফিসার বলেন, বৃষ্টি-জল উপেক্ষা করেও যান চলাচল যথাসম্ভব গতিময় রাখার চেষ্টা চলছে।

রাস্তায় বাস অন্য দিনের তুলনায় কম চলছে। অটো ট্যাক্সি যা চলছে, তারাও অতিরিক্ত দাম হাঁকছে বলে অভিযোগ তুলেছেন যাত্রীরা। শিয়ালদহ ও হাওড়ায় প্রিপেড বুথেও ট্যাক্সির সংখ্যা কম। অন্য দিকে কৈখালী, হলদিরাম, চিনার পার্ক, ভিআইপি রোডে কোথাও হাঁটু সমান, কোথাও বা তারও বেশি জল থইথই অবস্থা। ফলে রাজারহাট-নিউটাউনে-বিমানবন্দর যাওয়া-আসার পথে যানজটে ভোগান্তি বেড়েছে। সমস্যায় পড়ছেন নিত্য যাত্রীরা।

আরও পড়ুন: লাইভ: রাতভর বৃষ্টিতে জলমগ্ন কলকাতার বিস্তীর্ণ এলাকা, বর্ষণ চলবে, পূর্বাভাস আলিপুরের

আরও পড়ুন: স্ত্রীর জন্মদিন পালন করতে ভিক্টোরিয়া এসেছিলেন সপরিবারে, বাজ পড়ে মৃত্যু সুবীরের

বিমানবন্দরের রানওয়ে এবং ট্যাক্সি ওয়েতে জল দাঁড়িয়ে পড়ায় বিমান চলাচলে প্রভাব পড়েছে। বিমান ওঠানামায় দেরি হচ্ছে বলে এটিসি সূত্রে খবর। অধিকাংশ উড়ান দেরিতে চলছে। ফলে বিমানবন্দরে ভিড় বাড়ছে যাত্রীদের।

পূর্ব রেলের রেলের তরফে জানানো হয়েছে, মধ্যরাত থেকে বৃষ্টি চললেও বেলা ১১টা পর্যন্ত ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক। নিত্যযাত্রীদের অভিযোগ অবশ্য তার কয়েক গুন বেশি। অধিকাংশ যাত্রীই বলছেন, অনেক ট্রেন বাতিল  করে দেওয়া হয়েছে। যেগুলি চলছে, তারও গতি ধীর। ফলে অফিস পৌঁছতে দেরি হচ্ছে। তবে বেলার দিকে পূর্ব রেলের তরফে জানানো হয়েছে, হাওড়ায় ইএমইউ কারশেডে জল জমে যাওয়ায় বেশ কয়েকটি লোকাল ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।

ট্রেন বাতিল

• আপ ও ডাউন শ্রীরামপুর লোকাল

• ডাউন বেলুড় মঠ-হাওড়া লোকাল

•  ডাউন বেলুড় মঠ লোকাল

• ডাউন শেওড়াফুলি-হাওড়া লোকাল

দক্ষিণ-পূর্ব রেলের খড়গপুর শাখায় ট্রেন বাতিল

• ৩৮৪১৫ আপ হাওড়া-পাঁশকুড়া লোকাল

• ৩৮৪১৯ আপ হাওড়া-পাঁশকুড়া লোকাল

• ৩৮৩০৭ আপ হাওড়া-মেচেদা লোকাল

• ৩৮৩১১ আপ হাওড়া-মেচেদা লোকাল

• ৩৮৪৩০ ডাউন পাঁশকুড়া-হাওড়া লোকাল

• ৩৮৪২৬ ডাউন পাঁশকুড়া-হাওড়া লোকাল

• ৩৮৪৩৬ ডাউন পাঁশকুড়া-হাওড়া লোকাল

• ৩৮৩১৪ ডাউন মেচেদা-হাওড়া লোকাল

• ৩৮২০১/৩৮২০৬ হাওড়া-পাঁশকুড়া-হাওড়া লোকাল

• ৩৮৪৩৫/৩৮৪৫২ হাওড়া-পাঁশকুড়া লোকাল

চক্র রেলেও বাতিল হয়েছে একাধিক ট্রেন। লাইনের উপর ৮ ইঞ্চি জল জমে যাওয়ায় প্রিন্সেপ ঘাট থেকে বাগবাজারের মধ্যে চলাচলকারী ট্রেন বাতিল হয়েছে। তবে দমদম থেকে টালা এবং মাঝেরহাট থেকে প্রিন্সেপ ঘাটের মধ্যে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছে চক্র রেল। 

এর সঙ্গে শিয়ালদহ ফ্লাইওভার (বিদ্যাপতি সেতু) এবং আনোয়ার শাহ রোড-বাইপাস কানেকটর (জীবনানন্দ সেতু) মেরামতির জন্য বন্ধ। ফলে এই দুই এলাকাতেই যান বাহন ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই এই রাস্তার সংযোগকারী সব রাস্তায় যানবাহনের উপর ব্যাপক চাপ পড়েছে।

(এই প্রতিবেদনে ভুলবশত জলমগ্ন বেলুড়ের ছবি প্রকাশিত হয়েছিল। ছবিটি পুরনো। অনিচ্ছাকৃত এই ভুলের জন্য দুঃখিত)