রাস্তার পাশে গাছে প্রস্রাব করাকে কেন্দ্র করে দুই পাড়ার মধ্যে গোলমাল। তার জেরে রবিবার বিকেলে উত্তেজনা ছড়াল গড়িয়াহাট থানা এলাকার ডোভার লেনে। দুই পাড়ার এই খণ্ডযুদ্ধে শুধু স্থানীয় লোকজনই নয়, জখম হয়েছেন তিন পুলিশকর্মীও। পরে পুলিশ দুই পক্ষের ১৩ জনকে গ্রেফতার করে। সোমবার ধৃতদের আলিপুর আদালতে তোলা হলে তাদের জামিন হয়। তবে এ দিনও এলাকায় পুলিশি প্রহরা ছিল।

পুলিশ সূত্রে খবর, ডোভার লেনের একটি রাস্তার পাশে গাছ লাগিয়েছিলেন ১৬/২ ডোভার টেরাসের এক পাড়ার কিছু যুবক। এ দিন অন্য পাড়ার বাসিন্দা শুভঙ্কর অধিকারী সেই গাছে প্রস্রাব করলে তার প্রতিবাদ করেন বিশ্বজিৎ দাস নামে এক যুবক। অভিযোগ, এর পরেই শুভঙ্কর ওই যুবককে গালিগালাজ করেন এবং তার গলা টিপে ধরেন। সে সময়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত রাজু রজ্জাক নামে এক ইস্ত্রিওয়ালা এসে বিশ্বজিৎকে বাঁচান। এর পরে শুভঙ্কর নিজের পাড়ায় ফিরে গিয়ে লোকজনকে ডেকে আনলে গোলমাল শুরু হয়। একে অপরকে লক্ষ্য করে ইট, কাচের বোতল ছোড়াছুড়ি শুরু হয়। শুভঙ্করের পাড়ার লোকজন বিশ্বজিতের পাড়ার ঢুকে স্থানীয় মহিলাদের মারধর করে বলেও অভিযোগ। গোলমালের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তাঁদের লক্ষ্য করেও দুই পাড়ার ছেলেরা ইট ও কাচের বোতল ছুড়তে থাকে। আহত হন তিন পুলিশকর্মী। পরে র‌্যাফ নামিয়ে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনা হয়। গ্রেফতার করা হয় শুভঙ্কর ও বিশ্বজিৎ-সহ মোট ১৩ জনকে।

তবে এই দুই পাড়ার মধ্যে গোলমাল নতুন নয়। ১৫-২০ দিন আগেও বাচ্চাদের খেলাকে কেন্দ্র করে এই দুই পক্ষের গোলমাল বেধেছিল। পরিস্থিতি সামলাতে আসতে হয়েছিল পুলিশকে। এ নিয়ে আশপাশের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায়শই গোলমাল লেগে থাকে ওই দুই পাড়ার মধ্যে।