টালা ব্রিজ ভেঙে ফেলা হবে নাকি মেরামতি করে ফের চালু হবে—  এ বিষয়ে রাজ্য সরকার এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। আপাতত বাস, লরি-সহ ভারী যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। বিশেষ করে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়ছেন যাত্রীরা।এই সুযোগে ঝোপ বুঝে কোপ মারার অভিযোগ উঠছে অটো, হলুদ ট্যাক্সি, ওলা-উবর-সহ অ্যাপ ক্যাব সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে। বেশ কয়েকটি রুটের বাস বন্ধ হয়ে গিয়েছে। বিষয়টি মাথায় রেখে এ বার একটি কন্ট্রোল রুম খুলতে চলেছে রাজ্য পরিবহণ দফতর।

শুক্রবার পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, বেলগাছিয়ায় কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের ট্রেনিং সেন্টারে বিশেষ কন্ট্রোল রুম করা হচ্ছে। আগামীকাল থেকেই ১০ জন মোটর ভেহিকলস ইনস্পেক্টর নজরদারি চালাবেন। কোথাও কোনও যাত্রী সমস্যায় পড়ছেন কি না, বিকল্প রুটে যানবাহন ঠিক ভাবে চলছে কি না, তা-ও খতিয়ে দেখবেন তাঁরা। নজরদারি চালানো হবে বাস-অটোর উপরেও। বাস বা অটোচালকরা কেউ নিয়মের বাইরে গিয়ে গাড়ি চালাচ্ছেন কিনা খতিয়ে দেখা হবে।এর পাশাপাশি টালা থেকে কলকাতার দিকে অতিরিক্ত বাস চালানো হবে বলে জানিয়েছে পরিবহণমন্ত্রী।  তিনি বলেন, ‘‘নিত্যদিনের যাত্রী দু্র্ভোগ লাঘব করতে একগুচ্ছ পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত ২৮টি সরকারি বাস চালানো হবে। দীপাবলির আগে আরও বাসের সংখ্যা বাড়ানো হবে।’’ আগামী ১ নভেম্বর থেকে ১০০টি অ্যাপ নির্ভর ছোট বাস চালানোর পরিকল্পা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে যাওয়ার পর বেহালা, ঠাকুরপুকুর এলাকায় ৮৪টি বাস চালানো হচ্ছে বলে জানান শুভেন্দু। জলপথে অতিরিক্ত লঞ্চ পরিষেবাও চালু হবে। কুঠিঘাট থেকে ফেয়ারলি প্লেসের মধ্যে এখন দিনে ২টি লঞ্চ চলে। আগামী সোমবার থেকে ৪টি চালানো হবে। পরবর্তী ১০ দিনের মধ্যে তা বাড়িয়ে মোট ১০টি করা হবে। এই ১০টি ডাবল ইঞ্জিন লঞ্চ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে।পরিবহণমন্ত্রী এদিন আরও জানান, ২০টি অটো রুট চিহ্নিত করা হয়েছে। সেখানে অটোর সংখ্যা বাড়ানো হবে। আগামী সোমবার এই ২০টি অটো রুটের প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক হবে। আলোচনায় অংশ নেওয়ার কথা ওলা, উবর এবং হলুদ-নীল ট্যাক্সি ও বাস মালিকদের সবাইকে নিয়ে কসবায় বৈঠক করবেন পরিবহণমন্ত্রী।

আরও পড়ুন- নিমতায় ম্যানেজমেন্ট পড়ুয়া খুনে বান্ধবীর ভূমিকা ঘিরে ধোঁয়াশা, বক্তব্যে অসঙ্গতি

 

আরও পড়ুন-শব্দের তাণ্ডবে শীর্ষে ২২টি থানা

 

মন্ত্রী এদিন স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, অতিরিক্ত বাস-অটো এই বিকল্প রুটে চললেও, কোনও ক্ষেত্রেই অতিরিক্ত ভাড়া লাগবে না। যাত্রী পরিবহণ পরিষেবা যাতে স্বাভাবিক থাকে, সে জন্য মেট্রোর প্রতিনিধি, কলকাতা পুলিশের সঙ্গেও বৈঠক করেন পরিবহণ কর্তারা। শুভেন্দু অধিকারী জানান, মেট্রো কর্তৃপক্ষে জানিয়েছে,অতিরিক্ত ৪টি মেট্রো চলছে। আরও ৬টা চালানো হবে।