এক ব্যবসায়ীর ছেলের মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল। সোমবার ভাঙড়ের বিবিরাইটের কাছের ঘটনা। একটি খাল থেকে কিশোরের হাত বাঁধা দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতের নাম সাহিল খান (১৪)। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, জমি নিয়ে পারিবারিক বিবাদের জেরেই সাহিলকে শ্বাসরোধ করে খুন করে খালে ফেলে দেওয়া হয়। এক জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রের খবর, মৃত কিশোরের বাবা আব্দুল হামিদ খান প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। ভাঙড়ের ঘটকপুকুরে তাঁর একটি টায়ারের শোরুম আছে। নিহত সাহিল ভাঙড়ের নারায়ণপুর হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ত। রবিবার রাত প্রায় ৯টা থেকে সে নিখোঁজ ছিল। সোমবার থানায় নিখোঁজ ডায়েরি হয়। সোমবার বিকেলে বাড়ির সামনের খালে ছেলেটির দেহ ভাসতে দেখা যায়।

অন্য দিকে, ক্যানিঙের দুমকি গ্রামে পুকুর থেকে এক কিশোরের দেহ উদ্ধার করল পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত কিশোরের নাম আমির হোসেন ঘরামি (১৫)। বাড়ি কুলতলির মেরিগঞ্জে। সে গত কাল রাত থেকে নিখোঁজ ছিল।