বিজেপি নেতার দিকে গুলি ছোড়ার নালিশ
কৃষ্ণকালীবাবুর বাঁ হাতের কনুইয়ের নীচে আঘাত রয়েছে। তৃণমূল কোনও হামলার কথা মানতে চায়নি।
Surendrajeet Singh Ahluwalia with Injured BJP LEADER

ভাতারের আহত নেতার সঙ্গে বিজেপি প্রার্থী অহলুওয়ালিয়া। নিজস্ব চিত্র

এক বিজেপি নেতার দিকে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল ভাতারে। শনিবার রাতে ভাতারের আমারুন গ্রামে আহত হন কৃষ্ণকালী সামন্ত নামে ওই নেতা। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ঘটনাস্থল থেকে কোনও গুলির খোল মেলেনি। তবে ছোট-বড় কাচের টুকরো পাওয়া গিয়েছে। বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্রের দাবি, নানা পরীক্ষার পরেও গুলির চিহ্ন মেলেনি। তবে কৃষ্ণকালীবাবুর বাঁ হাতের কনুইয়ের নীচে আঘাত রয়েছে। তৃণমূল কোনও হামলার কথা মানতে চায়নি।

জেলা পুলিশের এক কর্তা বলেন, “গুলি অথবা বোমার আঘাতে জখম হয়েছেন বলে রবিবার সকালে আহতের আত্মীয় হরেন্দ্রনাথ মণ্ডল ভাতার থানায় অভিযোগ করেছেন। তবে আমরা ঘটনাস্থল থেকে কাচের টুকরো ছাড়া কিছু পাইনি। হাসপাতালের রিপোর্ট পেলে জখম সম্পর্কে নিশ্চিত ভাবে কিছু বলা যাবে।’’ এ দিন সকালে আহত নেতাকে দেখতে হাসপাতালে যান বর্ধমান-দুর্গাপুর কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সুরেন্দ্র সিংহ অহলুওয়ালিয়া। তিনি বলেন, ‘‘ভোট যত এগিয়ে আসবে, ততই গুলি-গোলা চলবে। আমাদের সাহস করে মাটি কামড়ে থাকতে হবে।’’ 

অহলুওয়ালিয়ার অভিযোগ, “বিজেপি বাড়ছে। তাতেই আতঙ্কিত হয়ে তৃণমূল আমাদের নেতার দিকে গুলি চালিয়েছে।’’ জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক উত্তম সেনগুপ্তের পাল্টা দাবি, “কিছুই হয়নি। বিজেপি বাজার গরম করতে চাইছে।’’

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

ভাতার থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছে, অজ্ঞাতপরিচয় তিন জন মোটরবাইকে এসে হামলা চালায়। কৃষ্ণকালীবাবুর অভিযোগ, “শনিবার রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ বাড়ির বারান্দায় বসেছিলাম। সেই সময়ে আমাকে লক্ষ্য করে পরপর দু’টি গুলি করা হয়। প্রথম গুলির পরে ভয়ে পড়ে যেতেই দ্বিতীয় গুলিটি আমার হাতে লাগে।’’ তিনি জানান, রক্তাক্ত অবস্থায় ছেলে ও এক প্রতিবেশীকে ফোন করেন। প্রথমে ভাতার স্টেট জেনারেল হাসপাতাল, পরে বর্ধমানে আনা হয় তাঁকে।

আহতের পড়শি বা ছেলের বয়ানের মধ্যে অসঙ্গতি রয়েছে বলে পুলিশের দাবি। বিজেপির জেলা সাংগঠনিক সভাপতি (বর্ধমান সদর) সন্দীপ নন্দী দাবি করেন, “বছর দুয়েক আগে কৃষ্ণকালী তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। তার পর থেকে ওখানে দলের প্রভাব বাড়ছে। সেই আক্রোশেই হামলা বলে মনে হচ্ছে।’’ ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মণ্ডলের পাল্টা বক্তব্য, “দূরবীণ দিয়েও বিজেপিকে দেখা যাচ্ছে না। সব মিথ্যা অভিযোগ।’’