কয়েক মাস ধরেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের হিড়িক পড়েছে বাগনানের ওড়ফুলি পঞ্চায়েতের রানা গ্রামে। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে অশান্তি চলছিলই। শুক্রবার রাতে দু’পক্ষ সংঘর্ষে তেতে ওঠে এলাকা। কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর চলে। বোমাবাজিও হয়। স‌ংঘর্ষ এবং বোমাবাজিতে দু’পক্ষেরই কয়েকজন জখম হন। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামলায়। পুলিশ জানায়, দু’পক্ষই অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত চলছে।

মাস তিনেক আগে ওই গ্রামের তৃণমূল নেতা বাপি মোল্লা বিজেপিতে যোগ দেন। অভিযোগ, শুক্রবার রাতে তৃণমূলের লোকেরা প্রথমে বাপি মোল্লার বাড়িতে চড়াও হয়। তাঁর এবং কয়েকজন বিজেপি সমর্থকদের বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। তারপরেই সংঘর্ষ শুরু হয় বলে স্থানীয় সূত্রের খবর। তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ, বিজেপির লোকেরাই তৃণমূল সমর্থকদের বাড়ি ভাঙচুর করে এবং বোমাবাজি চালায়।

বিজেপি নেতা বাপি বলেন, ‘‘এখানে গ্রামবাসীরা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। তাই পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে তৃণমূলের গুন্ডারা অশান্তি করল।’’ হাওড়া (গ্রামীণ) জেলার সভাপতি বিজেপির অনুপম মল্লিক বলেন, ‘‘গ্রামবাসী বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় তৃণমূল ভয় পেয়েছে। তাই বিধায়কের নেতৃত্বে রাস্তার আলো নিভিয়ে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ওরা এলাকায় ভাঙচুর চালায়।’’ পুলিশ অভিযোগ মানেনি। বাগনানের তৃণমূল বিধায়ক অরুণাভ সেনের দাবি, ‘‘আমি বা দলের কেউ হামলায় জড়িত নই। যাঁরা বিজেপিতে গিয়েছিলেন, তাঁরা ওই দলের নোংরা রাজনীতি দেখে আবার তৃণমূলে ফিরেছেন। এতেই বাপি মোল্লার লোকেরা বাইরে থেকে লোক এনে আমাদের সমর্থকদের বাড়িতেই হামলা করে।’’