• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পরিজনদের ফেরাতে চেয়ে বিক্ষোভ

পরিযায়ীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা, প্রস্তুত জেলা

Agitation
ময়নায় বিডিও অফিসে বিক্ষোভ। সোমবার। নিজস্ব চিত্র

কমেছে গণ্ডিবদ্ধ এলাকার (কনটেনমেন্ট জ়োন) সংখ্যা। নতুন করে সংক্রমণ ছড়ায়নি গত কয়েক দিনে। ধীর পায়ে ‘রং বদলে’র দিকে এগোচ্ছে পূর্ব মেদিনীপুর।

কিন্তু এর মধ্যেই আগামিকাল বিশেষ ট্রেনে জেলায় ফিরছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা। তাঁদের ফেরা পরবর্তী করোনা-কমযজ্ঞ নিয়ে যেমন প্রস্তুতি নিচ্ছে জেলা স্বাস্থ্য দফতর, তেমনই যে সব শ্রমিকেরা এখনও ফিরতে পারেননি, তাঁদের পরিজনেরা সোমবার জেলা জুড়ে বিক্ষোভও দেখিয়েছেন। 

প্রাশন সূত্রের খবর, বিশের ট্রেনের পাশাপাশি কেন্দ্রে যে ক’টি দূরপাল্লার ট্রেন চালু করেছে, তাতে করেও জেলায় ভিন্ রাজ্যে থেকে অনেকের আসার সম্ভাবনা রয়েছে। জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, ভিন্ রাজ্যে থেকে ফেরা জেলা বাসিন্দাদের মেচেদায় ‘পথসাথী’ কোয়রান্টিনে থার্মাল স্ক্রীনিং এবং প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় কারও করোনা উপসর্গ থাকলে তাঁকে সরকারি নিভৃতবাস কেন্দ্রে (কোয়রান্টিন সেন্টার) রাখা হবে এবং তাঁর লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হবে। 

বর্তমানে পূর্ব মেদিনীপুর স্বাস্থ্য জেলার বিভিন্ন হাসপাতাল এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১৩টি এবং নন্দীগ্রাম স্বাস্থ্য জেলায় চারটি নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্র রয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর স্বাস্থ্য জেলায় আরও দু’টি এবং নন্দীগ্রাম স্বাস্থ্য জেলায় আরও তিনটি নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্র চালু হচ্ছে। এজন্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় যেসব ব্যক্তিদের করোনা উপসর্গ পাওয়া যাবে না তাঁদের ১৪ দিন ঘরেই নিভৃতবাসে (হোম কোয়রান্টিন) রাখা হবে। নিভৃতবাসে থাকার পদ্ধতি জানানোর জন্য স্বাস্থ্য কর্মীরা সেচতন করবেন। নিয়মিত তাঁদের নজরদারি করা হবে।

নন্দীগ্রাম স্বাস্থ্য জেলার উপ-মুখ্য স্বাস্থ্য (২) আধিকারিক সমুদ্র সেনগুপ্ত বলেন, ‘‘পরিযায়ী শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। করোনা উপসর্গদের চিহ্নিত করে নমুনা পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। নতুন করে সংক্রমণ ছড়ানো রুখতে আমরা সব প্রস্তুতি নিয়েছি।’’

এদিকে, শ্রমিকদের ফেরানোর পদ্ধতি নিয়ে বহু ক্ষেত্রেই শ্রমিকদের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। প্রাথমিকভাবে শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে জেলার তরফে বাইরে থাকা বাসিন্দাদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রের ভিন্ রাজ্যে আটকে পড়া জেলাবাসীর একাংশ অভিযোগ করেছেন, তাঁদের সরকারের রাজ্য সরকারের নির্দিষ্ট হেল্পলাইন নম্বর ফোন করে

ভিন্ রাজ্যে থাকা পরিযায়ী শ্রমিক এবং অন্যদের দ্রুত বাড়ি ফেরানোর দাবিতে এ দিন জেলাজুড়ে বিভিন্ন প্রশাসনিক দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তাঁদের পরিজন। নন্দীগ্রাম-২ ব্লক অফিসে বিক্ষোভ দেখান শাতাধিক মানুষ। তাঁদের প্রত্যেকেরই পরিজন-আত্মীয় ভিন্ রাজ্যে আটকে রয়েছেন।  সামাজিক দূরত্ব মেনে প্রায় ঘণ্টাখানেক সেখানে বিক্ষোভ হয়। এ দিন বিক্ষোভ হয়েছে চণ্ডীপুর, নন্দকুমার, ময়না, শহিদ মাতঙ্গিনী, নন্দীগ্রাম-১, ব্লক অফিসেও।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন