অনুষ্ঠানে সামিল তিন দলই, কটাক্ষ বিজেপির
মঙ্গলযাত্রায় প্রচারে
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সোমবার রায়গঞ্জ শহরে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করেছিল স্থানীয় এক সংগঠন।
Artist

সাজ: ভোট প্রচারের শোভাযাত্রায় লোকশিল্পীরা। মালদহে। ছবি: তথাগত সেনশর্মা

শেষে নববর্ষের মঙ্গল শোভাযাত্রা ঘিরেও রাজনীতির বিতর্ক!

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সোমবার রায়গঞ্জ শহরে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করেছিল স্থানীয় এক সংগঠন। ওই শোভাযাত্রায় আমন্ত্রিত হয়েছিলেন এলাকার বিদায়ী সাংসদ মহম্মদ সেলিম, বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত এবং শহরের পুরপ্রধান সন্দীপ বিশ্বাস। বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর নামে রায়গঞ্জের সিপিএম প্রার্থী সেলিম পরোক্ষে তাঁর সমর্থনে প্রচার চালিয়েছেন। সন্দীপ ও মোহিতের বিরুদ্ধেও তৃণমূল ও কংগ্রেস প্রার্থীর হয়ে শোভাযাত্রায় নির্বাচনী প্রচার চালানোর অভিযোগ করেছে বিজেপি। যদিও আয়োজক সংগঠনটির সভাপতি তথা রায়গঞ্জ করোনেশন হাইস্কুলের প্রধানশিক্ষক শুভেন্দু মুখোপাধ্যায়ের বক্তব্য, বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বাসিন্দাদের শুভেচ্ছা জানাতে প্রতিবছরের মতো এবছরও সংগঠনের তরফে শহরে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। এই শোভাযাত্রার সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। এলাকার সাংসদ, বিধায়ক ও পুরসভার পুরপ্রধান হিসেবে সেলিম, মোহিত ও সন্দীপকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

কিন্তু বিজেপির উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি নির্মল দামের দাবি, ‘‘এ দিন সিপিএম ওই সংগঠনকে সামনে রেখে কৌশলে ওই শোভাযাত্রা আয়োজন করে সেলিমকে পরোক্ষে নির্বাচনী প্রচারের সুযোগ করে দিয়েছে। শোভাযাত্রাটিকে অরাজনৈতিক প্রমাণ করতে সন্দীপ ও মোহিতকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়। তাই সুযোগ পেয়েই ওই দু’জনেও বাসিন্দাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর নামে তৃণমূল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়াল ও কংগ্রেস প্রার্থী দীপা দাশমুন্সির সমর্থনে পরোক্ষে নির্বাচনী প্রচার চালান।

এ দিন সকাল পৌনে ১০টা নাগাদ রায়গঞ্জ শহরের বিবেকানন্দ মোড় এলাকা থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়। অংশগ্রহণকারীদের অনেকেরই হাতে বাংলা সাহিত্য, সংস্কৃতি, শিল্প ও হস্তকলার বিভিন্ন মডেল, মুখোশ, পালকি, পশুপাখি ও হিন্দুদের বিভিন্ন দেবদেবীর মডেল ছিল। শোভাযাত্রা শুরুর মুখে সেলিম বিবেকানন্দ মোড় ও করোনেশন হাইস্কুল চত্বরে গিয়ে শোভাযাত্রার অংশগ্রহণকারী বাসিন্দাদের বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানান। সেইসময় অনেককেই সেলিমের সঙ্গে নিজস্বী তুলতে দেখা যায়। কিছুক্ষণ পর সেলিম এক ঢাকির কাছ থেকে তাঁর ঢাক চেয়ে নেন। এরপর তিনি সেই ঢাকটি কাঁধে ঝুলিয়ে কিছুক্ষণ বাজান। পরে শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে সেলিম বলেন, ‘‘আমি নির্বাচনে দাঁড়িয়েছি। তাই আমি শোভাযাত্রায় হাঁটলে বিতর্ক হবে। এখানে আমি নির্বাচনী প্রচার করতে আসিনি। আপনাদের নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানাতেই এসেছি।’’

পুরপ্রধান সন্দীপ কিছুক্ষণ শোভাযাত্রায় হেঁটে বাসিন্দাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে ফিরে যান। রায়গঞ্জের কংগ্রেস বিধায়ক মোহিত অবশ্য শোভাযাত্রায় হেঁটে বাসিন্দাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। মোহিত ও সন্দীপেরও দাবি, বাসিন্দাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতেই তাঁরা ওই শোভাযাত্রায় অংশ নেন। এর সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারের কোনও সম্পর্ক নেই।